শুক্রবার কলকাতায় মতুয়া সম্প্রদায়ের বাড়িতে যাবেন  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। নিউটাউনে মতুয়া সংঘের মন্দিরে পুজো দিয়ে সেই সংঘের এক সদস্যের বাড়িতে মধ্যাহ্ন ভোজ সারবেন অমিত শাহ। আর সেই আসাকে ঘিরে এই মুহূর্তে সাজো সাজো রব।গোটা রাস্তা ভরিয়ে দেওয়া হয়েছে ফ্ল্যাগ ও হোর্ডিং-এ।অন্য দিকে মন্দিরে সদস্যদের উচ্ছাস আনন্দ।

 

 

কী কী দাবি থাকবে অমিত শাহের কাছে


সূত্রের খবর, শুক্রবার সকাল দশটায় দক্ষিনেশ্বর মন্দিরে যাওয়ার কথা আছে তাঁর। তারপর ১০ টা ৩৫ এ গল্ফ ক্লাব হয়ে ইজেডসিসি-তে ১১ টা ৩০ নাগাত পৌছাবেন। ১ টা ১৫ তে গৌরাঙ্গ নগর, ২ টা ১৫ নাগাত নিউটাউন, ৩ টা ১৫ নাগাত  আবার ইজেডসিসি ফিরে মিটিং করবেন তিনি। সারাদিনেই অনেকের সঙ্গে দেখা করবেন তিনি। দুপুরে প্রথমে অমিত শা যাবেন নিউটাউন জ্যোতিনগরে মতুয়া মহাসঙ্ঘের মন্দিরে। জ্যোতিনগর মোড় থেকে মন্দির পর্যন্ত মহিলারা ফুল নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে। অমিত শা ঢুকলে পুষ্প বৃষ্টি করা হবে।সঙ্গে বাজবে ডাঙ্কা- কাশি ।মন্দিরের ভিতরে তিনি প্রবেশ করার পর বাসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে সেখানে বসবেন। তার পর পুজো দেবেন। মন্দির কমিটির তরফ থেকে একটি স্বারক লিপি দেওয়া হবে। যেখানে তাদের দুটো দাবি থাকবে। প্রথমত, যে নাগরিকত্ব আইন পাশ হয়েছে সেই নাগরিকত্ব দেওয়ার কাজ যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এবং নিঃশর্ত সেই নাগরিকত্ব দিতে হবে। দ্বিতীয়ত, কেষ্টপুর থেকে যাত্রাগাছি পর্যন্ত যে বাগজোলা খাল ধার রাস্তা আছে সেই রাস্তার নাম শ্রী শ্রী গুরুচাঁদ ঠাকুর সরণি করতে হবে। এর পর তারা অনুরোধ করবে অমিত শা এর কাছে যাতে ভক্তদের উদ্যেশে তিনি যেন কিছু বলেন।

 

 

অমিত শাহ শহরে 


  প্রসঙ্গত, বুধবার  কলকাতায় এসেছেন অমিত শাহ। রাজ্যে দু দিনের সফরের জন্য কলকাতা বিমানবন্দরে এসে পৌছলেন দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। বুধবার রাত ৯ টা ৫ মিনিট নাগাত বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব, কর্মী-সমর্থক ঢাক-ঢোল পিটিয়ে তাঁকে স্বাগত জানান। বুধবার রাতটুকু কলকাতায় ঘুমিয়ে তিনি বৃহস্পতিবার বাঁকুড়া সফরে যান।সফরের শুরুতেই শহরের পুয়াবাগানে বিরসা মুন্ডার মুর্তিতে মালা দিয়ে রবীন্দ্রভবনে দলীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। তারপর বাঁকুড়ার আদিবাসী প্রধান চতুরডিহি গ্রামে বিজেপি কর্মী বিভীষণ হাঁসদার বাড়িতে সারেন  ভাত, ডাল, পোস্ত, চাটনি দিয়ে মধ্যাহ্নভোজ।