রাজ্য বিজেপির সদর দফতর ৬ নম্বর মুরলীধর সেন লেনে আগামীকাল থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য তালা পড়ে যাচ্ছে। উদ্ভূত করোনা পরিস্থিতির হাত থেকে রক্ষা পেতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে সূত্রের খবর, আপাতত ১৫ দিন পর্যন্ত বন্ধ রাখা হবে দফতর। পরে পরিস্থিতি দেখে আগামী দিনেও দফতর বন্ধ রাখা হবে কিনা তার সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। 

জানা গিয়েছে, দলের একাধিক নেতা নেত্রীর জ্বর। করোনা আতঙ্কে দলের সভা-মিছিল বাতিল করেছেন বিজেপির রাজ্য় সভাপতি। মাঠে ময়দানে এখন মিছিল না করে ভার্চুয়াল প্রচারেই জোর দিচ্ছেন  তিনি। মুরলীধর সেন লেনে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে, বিজেপির বেশ কয়েকজন নেতাই জ্বরে কাবু। আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে তাদের শরীরেও থাবা বসিয়েছে ভাইরাস ফিবার। প্রথম থেকেই তাই এই নিয়ে সতর্ক থাকছে গেরুয়া ব্রিগেড। দলের কোনও নেতার করোনা না হলেও কোনও ঝুঁকি নিতে চাইছে না তারা। আপাতত অনেককেই হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার জন্য  বলেছে বিজেপির রাজ্য় নেতৃত্ব। 

বিজেপি নেতৃত্বের আশঙ্কা দলের রাজ্য় সদর দফতরে প্রতিদিন বহু নেতা নেতৃত্বের আনাগোনা। সেখানে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের সতর্ক থাকা খুবই দুষ্কর হয়ে দাঁড়াচ্ছে। করোনা বিপদের আশঙ্কা থেকেই এখন পার্টির সদর দফতরেও যাতায়াত বন্ধ করেছেন বহু নেতা। জানা গিয়েছে, মূরলীধর সেন স্ট্রিটের কাছে পাওয়া গিয়েছে  করোনার সংক্রমণ।
সম্প্রতি সংক্রমণের আশঙ্কায় বাড়িটি সিল করে দিয়েছে পুলিশ। যদিও করোনার আশঙ্কায় সতর্ক থাকছেন বিজেপির নেতারা।

ইতিমধ্য়েই দলে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। নিজেই টুইটারে সেই খবর জানিয়েছেন তিনি। সংক্রমণের আশঙ্কায় কোয়ারান্টাইনে গিয়েছেন তার গাড়ির চালকও। কানাঘুষো চলছে, দলের বেশকিছু নেতাও কোয়ারান্টাইনে গিয়েছেন। আপাতত বাড়িতে থেকেই ভিডিয়ো কনফারেন্সিংয়ে প্রচারের কাজ করবেন তারা।