রুশি পাঁজা:  করোনা আবহে অবশেষে কলকাতা পুরসভায় প্রশাসক নিয়োগ নিয়ে জটিলতা অবসান। বিদায়ী মেয়র ফিরহাদ হাকিমকেই প্রশাসক পদে বসানোর সিদ্ধান্তে সিলমোহর দিল কলকাতা হাইকোর্ট। স্বস্তিতে রাজ্য সরকার।

আরও পড়ুন: নারদকাণ্ডে ফিরহাদের হিসেব তলব ইডি-র, কী বললেন তৃণমূলের মন্ত্রী

স্রেফ কলকাতা পুরসভাই নয়, এ রাজ্যের বেশিরভাগ পুরসভায় বোর্ডের মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে আপাতত স্থগিত নির্বাচন। তাহলে পুরসভা চলবে কী করে? কলকাতা-সহ রাজ্যে বিভিন্ন প্রান্তে পুরসভায় প্রশাসক বসিয়েছে সরকার। কলকাতা পুরসভায় প্রশাসকের দায়িত্ব পেয়েছেন বিদায়ী মেয়র ফিরহাদ হাকিমই। নিয়মমাফিক জারি করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিও। আর তা নিয়ে যতই গন্ডগোল।

রাজ্য সরকারে সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে তিনটি মামলা দায়ের করা হয় কলকাতা হাইকোর্টে। মামলাকারীদের মধ্যে একজন ছিলেন খোদ রাজ্য় বিজেপি সহ-সভাপতি প্রতাপ চট্টোপাধ্যায়। মামলাকারীদের বক্তব্য ছিল, পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষে  কোনও অনির্বাচিত বোর্ড পুরসভার কাজ চালাতে পারে। আপদকালীন পরিস্থিতি যেভাবে বিজ্ঞপ্তি জারি বিদায়ী মেয়রকে প্রশাসক নিয়োগ করা হয়েছে, তা আইনত বৈধ নয়। পুর আইনেও প্রশাসক নিয়োগের সংস্থান নেই। করোনা পরিস্থিতি শহরবাসীদের পরিষেবা দেওয়ার যুক্তিতে আদালতে পাল্টা সওয়াল করেন সরকারি আইনজীবীও। শেষপর্যন্ত আইনি লড়াইয়ে জয় হল রাজ্য সরকারেরই।

আরও পড়ুন: তৃণমূলে পা বাড়াচ্ছেন শোভন,তড়িঘড়ি কলকাতার সাংগঠনিক দায়িত্বের প্রস্তাব বিজেপির

কলকাতা পুরসভা সংক্রান্ত মামলাটি খারিজ করে দিলেন হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় ও বিচারপতি অনিরুদ্ধ রায়ে ডিভিশন বেঞ্চ। আদালত সাফ জানিয়ে দিয়েছে, আপদকালীন পরিস্থিতিতে পুরসভার প্রশাসক নিয়োগের জন্য বিধানসভায় অর্ডিন্যান্স আনার কোনও প্রয়োজন নেই। তবে রাজ্য় সরকার ও কমিশন দ্রুত নির্বাচন করার উদ্যোগ নেবে বলেও আশা প্রকাশ করা হয়েছে।