আর শুধু করোনা হাসপাতাল নয়,  কলকাতা মেডিক্যাল  কলেজ হাসাপাতালে হবে অন্যান্য রোগীর চিকিৎসাও। খুলে যাচ্ছে সব আউটডোর । অবশেষে কলেজের পড়ুয়াদের দাবিতেই সিলমোহর দিল কলেজ কর্তৃপক্ষ।

গত পয়লা জুলাই থেকে শুরু হয়েছিল বিক্ষোভ। কলকাতা মেডিক্যাল কলেজকে কেবল করোনা হাসপাতাল করার বিরোধিতা করছিল পড়ুয়ারা। এক সপ্তাহ ধরে হাসপাতালের বাইরে তাঁবু খাটিয়ে চলচিল আন্দোলন। বার বার স্বাস্থ্য় বিভাগের আধিকারিকদের সঙ্গে এই বিষয়ে কথা হলেও রফাসূত্র পাওয়া যাচ্ছিল না। কিছুদিন আগেই রাজ্য়ের কোভিড  পরিস্থিতির জন্য় মেডিক্যাল কলেজকে কেবল করোনা রোগীর কেন্দ্র বানায় রাজ্য় সরকার। মুখ্যমন্ত্রী নিজে সেই ঘোষণা করেন ।

যদিও পরে দেখা যায়, একের পর এক চিকিৎসক , নার্স ও স্বাস্থ্য়কর্মী করোনায় আক্রান্ত হতে শুরু করেন। যার জেরে প্রায়শই কোয়ারান্টাইনে যেতে হচ্ছিল তাদের। ফলে একপ্রকার চিকিৎসকদের অভাব দেখা দিচ্ছিল হাসপাতালে। এরমদ্য়ে অন্য়ান্য় বিভাগ চালু না থাকায় সমস্য়ার মুখে পড়ছিলেন রোগীরা। সেই বিভাগে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারও চাইলেও রোগীর চিকিৎসা করতে পারছিলেন না। 

শেষে এদিন  সব জল্পনায়  জল ঢালে খোদ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কথা বলা হয় পড়ুয়াদের সঙ্গে। তাদের জানিয়ে দেওয়া হয় আগামীকাল থেকে সব বিভাগ ধীরে ধীরে  চালু হয়ে যাবে। ইনডোরের সঙ্গে সঙ্গে চালু থাকবে আউটডোর। এবার থেকে আর কেবল কোভিড হাসপাতাল হিসাবে নাম থাকছে না কলকাতা মেডিক্যাল কলেজের। এই কথা পাওয়া মাাত্রই আন্দোলন তুলে নেওয়ার কথা বলেন পড়ুয়ারা।