আজ নেতাজির সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে শহর জুড়ে দিনভর একাধিক অনুষ্ঠান। একদিকে যেমন শহরে আসছেন প্রধানমন্ত্রী। ন্যাশানল লাইব্রেরিতে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন নরেন্দ্র মোদী। এরপর ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে ২টি গ্যালারির উদ্বোধন করবেন তিনি। অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। নেতাজি ভবনেও যাবেন প্রধানমন্ত্রী। নেজাতির জন্মদিন উপলক্ষ্যে সকালে ট্যুইটও করেছেন মোদী। অপরদিকে, রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকেও রয়েছে একাধিক কর্মসূচি। সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মবার্ষিকী উদ্‍যাপন উপলক্ষ্যে আজ শ্যামবাজার থেকে ধর্মতলায় নেতাজি মূর্তির পাদদেশ পর্যন্ত পদযাত্রা করবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  

 

 

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনের সকালে একাধিক ট্যুইট করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন্দ্রের তরফ থেকে দিনটি পরাক্রম দিবস হিসেবে পালনের ঘোষণা করা হলেও, মমতা জানান আমরা দিনটি দেশনায়ক দিবস হিসেবে পালন করছি। নেতাজিকে শ্রদ্ধা জানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লেখেন, 'নেতাজি যথার্থই দেশ নায়ক ছিলেন, দেশের অখন্ডতায় গভীর বিশ্বাস ছিল তাঁর। দেশনায়ক দিবস হিসাবেই আমরা এই দিনটি পালন করছি।'

 

 

একইসঙ্গে অপর একটি ট্যুইট বার্তায় নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুকে শ্রদ্ধা জানিয়ে রাজ্য সরকার কি কি করেছে  ও করতে চলেছে তাও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন সকালে সোশ্যাল মিডিয়ায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লেখেন,  আজাদ হিন্দ ফৌজের নামে রাজারহাটে মনুমেন্ট তৈরি করা হবে। রাজ্য সরকারের টাকায় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোস বিশ্ববিদ্যালয়ও তৈরি হয়েছে। যেটি বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে সংযুক্ত করা হবে। 

 

 

নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর জন্মদিন উপলক্ষ্যে যে কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছে, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার কথাও সোশ্যাল মিডিয়ায় জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একইসঙ্গে ২৩ জানুয়ারিকে জাতীয় ছুটি হিসেবে ঘোষণা করার দাবিও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফলে নেতাজির ১২৫ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে সরগরম বাংলা।