কয়লা পাচার কাণ্ডে তল্লাশি চালাতে গেলে আর লাগবে না রাজ্যের অনুমতি। ভোটের আগে বড় ধাক্কা রাজ্যের। তবে সিবিআইকে স্বস্তি দিয়ে রায় শোনাল হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। উল্লেখ্য, সোমবার সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানায় সিবিআই। আর শুক্রবারেই মিলল ছাড়পত্র।

আরও পড়ুন, বনধকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে রাজ্যের স্কুলে পঠনপাঠন শুরু, নির্দিষ্ট সময়েই উপস্থিত ছাত্রছাত্রীরা 

আদালত জানিয়েছে, রাজ্যের অনুমতি ছাড়াই এখন থেকে  কয়লা পাচার কাণ্ডে তল্লাশি চালাতে পারবে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। আদালত আরও জানিয়েছে, অভিযুক্ত অনুপ মাঝি ওরফে লালা-সহ বাকি অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত চালাতে পারবে সিবিআই। ২৩ মার্চের মধ্যে সকল পক্ষকে হলফনামা জমা দেওয়া নির্দেশ দিয়েছে ডিভিশন বেঞ্চ। ২৭ তারিখ এই মমালার পরবর্তী শুনানি। 

 আরও পড়ুন, বনধে দাদাগিরি নয়, বামেদের গান্ধীগিরি ফ্রেমবন্দি, অবরোধ তুলতে যেতেই পুলিশকে মিষ্টি মুখ-গোলাপ 


সম্প্রতি কয়লা পাচার কাণ্ডে রাজ্য়ের সহযোগিতা নিয়ে তল্লাশি চলতে হবে সিবিআইকে বলে রায় দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চ। আর এখানেই আপত্তি রয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার। প্রসঙ্গত, রাজ্যে কয়লা এবং গরু পাচার মামলায় দ্রুত তদন্ত করছে সিবিআই। এদিকে ভোটের আগে যা নিয়ে সরগরম রাজ্য। কয়লা পাচার মামলায় অনুপ মাঝি ওরফে লালার নামে এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করে সিবিআই। আর এই মামলায় সিবিআইয়ের তদন্ত করার এক্তিয়ার নিয়ে প্রশ্ন তুলে কিছুদিন আগেই হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চে এফআইআর-কেই চ্যালেঞ্জ করে লালা। শুনানি শেষে সিবিআই-এর বিরুদ্ধে লালার করা মামলা খারিজ করে দেয় আদালত। হাইকোর্টের বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্য স্পষ্ট জানিয়েছিলেন, রেলের এক্তিয়ারযুক্ত এলাকা ছাড়া এই মামলায় তল্লাশি চালাতে গেলে রাজ্য়ের সহযোগিতা নিতে হবে। যৌথভাবে তল্লাশি চালনোর কথাও নির্দেশে জানিয়েছিল হাইকোর্ট। এখানেই আপত্তি হয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার। এরপরেই সোমবার সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানায় সিবিআই। শুক্রবার রায়ের পর আর  এবার বাধা থাকল না কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার।