কলকাতায় লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সেই অনুযায়ী বাড়ল কনটেইনমেন্ট জোনও।  শনিবার কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ২৪ থেকে বেড়ে হল ৩২।

শুক্রবার পর্যন্ত রাজ্যে মোট কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ছিল ৬৯৭। সবথেকে বেশি কনটেনমেন্ট জোন রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনায়। কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা কমে হয়েছিল ২৪। হাওড়ায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ৮৫। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৫৫।

এদিন কলকাতা পুরসভা স্বাস্থ্য বিভাগের এবং পুলিশ আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠকের শেষে কলকাতার নোডাল অফিসার আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় জানান,কলকাতায় এক-তৃতীয়াংশ বস্তি এলাকা গত কয়েক দিনে ১৭৭টি কে ধরা পড়েছে। বাড়িগুলিতে ১২০০ কেস ধরা পড়েছে এবং আবাসনগুলোতে ১৪০০ কেস ধরা পড়েছে। এদিন তিনি আরও জানান, করোনা মোকাবিলায় এবার পালস অক্সিমিটার ব্যবহার করা হবে। সেফহোমগুলিতে কলকাতা পুরসভার খরচেই থাকা-খাওয়া এবং চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। গীতাঞ্জলি স্টেডিয়াম এবং যাদবপুরের কিশোর ভারতী স্টেডিয়াম সেফ হোম-এর জন্য ব্যবহার করা হবে।

এদিকে একদিনে রাজ্য়ে করোনা আক্রান্তের সব রেকর্ড ভাঙল। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্য়ে কোভিড পজিটিভের সংখ্য়া দাঁড়াল ২১৯৮। যা দেখে স্বাভাবিকভাবেই উদ্বেগ বেড়েছে স্বাস্থ্য়ভবনের। স্বাস্থ্য় ভবনের বুলেটিন বলছে, এই প্রথম বাংলায় একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ২০০০ ছাড়াল৷ 

শুক্রবার এই সংখ্যাটা ছিল ১,৮৯৪ জন৷ এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪০,২০৯ জন৷ তবে এই প্রথম মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ হাজার ছাড়াল৷ গতকাল ছিল ৩৮,০১১ জনে৷ পরিসংখ্যান বলছে, একদিনে কলকাতায় ৬৪৮ জনের কোভিড পজিটিভ ধরা পড়েছে।  উত্তর চব্বিশ পরগনায় পাশাপাশি একদিনে ৪ জনের শরীরে কোভিড পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে।