২১ জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের শহিদ দিবসের বক্তব্যেও রীতিমত গুরুত্ব পেল রাজ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। তৃণমূল সুপ্রিমো বলেন সংক্রমণ রুখতে রীতিমত সচেষ্ট প্রশাসন।  রাজ্যের করোনাভাইরাস পরহিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন এইরাজ্যে উপসর্গহীন মানুষের সংখ্যা ৮৭ শতাংশ। মাত্র ৫ শতাংশ মানুষই গুরুতর সংক্রমিত হয়েছেন। কেন্দ্রের সুরে সুর মিলিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী এদিন বলেন এইরাজ্যে রিকভারি রেটও খুব ভাল। গড়ে ৬০ মানুষই ডিসচার্জ হয়ে যাচ্ছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

অন্যবারের মত এবার আর জনসমাবেশ হয়নি ২১  জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের শহিদ দিবসে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্য ভার্চুয়াল সমাবেশেরই ব্যবস্থা করা হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে। কালীঘাটের বাড়ি থেকে বক্তব্য রাখেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেই সময়ই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন. করোনাভাইরাস নিয়ে রাজ্যে উদ্বেগ বাড়লেও কিছু করার নেই । পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লির সঙ্গেও তুলনা করেন। তিনি বলেন, দিল্লি ছোট রাজ্য। কিন্তু বাংলা আয়তনে অনেত বড়। উত্তর প্রদেশের পরেই বাংলার স্থান। কোভিড ও আমফান হয়ে যাওয়া কিছুটা হলেও সমস্যা হয়েছে বলে অবশ্য স্বীকার করে নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি তিনি বলেন করোনাসংক্রমণ চললেও এনআরসি নিয়ে কিছুতেই পিছু হটবে না কেন্দ্রীয় সরকার। 


করোনাভাইরাসের সংক্রমণে রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার বেহাল দশা নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়েছে বিরোধীরা। করোনা সংক্রমণ রুখতে রাজ্য ব্যর্থ বলেও অভিযোগ করেছে বিজেপি। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২১ জুলাইয়ের মঞ্চ থেকে সরাসরি জানিয়ে দিয়েছেন মোটের ওপর স্থিতিশীল রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি। চিন্তা করার কিছু নেই।