অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্য়ায়কে নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য় করায় এবার  রেলমন্ত্রীর পাল্টা দিলেন সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম। এক ভিডিয়ো বার্তায় সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য বলেন,অভিজিৎ বন্দ্য়োপাধ্য়ায়ের গরিবের অর্থনীতি বুঝবেন না রেলমন্ত্রী। কারণ, তাঁদের বুদ্ধিতেও সেটা কুলোবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

দেশের মাটিতে পা দিতেই অভিজিৎ-কে নিয়ে শুরু হয়ে যায় বাক্যবাণ। যার জেরে নোবেল প্রাপ্তির পর ভারতে ফিরতেই অভিজিৎ বন্দ্য়োপাধ্য়ায়কে নিয়ে বাকযুদ্ধে জড়াল বিজেপি,সিপিএম। কেন্দ্রীয়মন্ত্রী পীযুষ গয়ালকে একহাত নিলেন মহম্মদ সেলিম। এদিন তিনি বলেন, পুঁজিপতিদের টাকায় বৈভব বিজেপির। তাঁদের টাকাতেই ভোট বৈতরণী পার করেছে বিজেপি। এই জন্য তাঁরা পুঁজিপতিদের সেবায় কাজ করবে। সরকারও তাদের সেবায় কাজ করবে। যেহেতু গরিব মানুষের স্বার্থে বামপন্থীরা কাজ করছে, তাতে কিছুতেই তা গ্রহণযোগ্য নয়। এই বলেই অবশ্য থেমে থাকেননি রায়গঞ্জের প্রাক্তন সাংসদ। সেলিম বলেন,সারা দেশ যখন বাঙালি প্রজ্ঞায় মুগ্ধ, তখন আরএসএস, বিজেপি কুসংস্কার আচ্ছন্ন মন নিয়ে সব কিছুর বিচার করেন। এটা খুবই দুর্ভাগ্য়ের বিষয়।     

সম্প্রতি অভিজিৎ বন্দ্য়োপাধ্য়ায় নিয়ে মন্তব্য় করেন রেলমন্ত্রী পীযুষ গয়াল।  তিনি বলেন, অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্য়ায় নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন, তাই তাঁকে আমরা অভিন্দন জানাচ্ছি। কিন্তু তিনি কোন আদর্শে বিশ্বাসী তা সবাই জানে। বামপন্থার দিকে ঝুঁকে রয়েছেন তিনি। এমনকী ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের  ইস্তাহারের ন্যূনতম আয় যোজনা বা ন্যায় প্রকল্পকে সমর্থন করেছিলেন তিনি। যা দেশের মানুষ গত লোকসভা নির্বাচনে প্রত্যাখান করেছেন। ভারতবাসী যে আদর্শকে গ্রহণই করেনি তাঁর ভাবনাচিন্তা নিয়ে আমাদের কিছু বলার নেই। 

রেলমন্ত্রী পীয়ুষ গয়ালেক এই মন্তব্য় থেকেই পরিষ্কার, অদূর ভবিষ্যতে দেশের অর্থনীতি নিয়ে অভিজিতের মন্তব্যকে কাউন্টার করবে বিজেপি। নোবেল পাওয়ার আগেই মোদীর নোটবন্দি নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন অভিজিৎ বন্দ্য়োপাধ্য়ায়।  এমনকী নোবেল লাভের পরও দেশের আর্থিক অবস্থা নিয়ে উষ্মাপ্রকাশ করেছেন এই বাঙালি অর্থনীতিবিদ। তিনি বলেন, একমাত্র গরিবের হাতে অর্থ গেলেই দেশের হাল ফিরবে।