Asianet News Bangla

মুখ থুবড়ে পড়েছে মমতার স্বয়ংসিদ্ধা, কেন এই হাল

  • ২০১৬ সালে 'স্বয়ংসিদ্ধা' প্রকল্পের সূচনা করেছিল  
  • প্রকল্পের উদ্দেশ্য ছিল প্রতিটি মেয়েকে স্বয়ংসিদ্ধা করা 
  • স্বয়ংসিদ্ধা শুরুর পরে নারী পাচার অনেকটাই কমে ছিল 
  •  সাফল্য় লাভের পরেও গত কয়েক মাস ধরে বন্ধ এই প্রকল্প 
     
Despite of success Swayangsiddha project has been stopped in District schools
Author
Kolkata, First Published Feb 17, 2020, 2:28 PM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

নারী পাচার রুখতে স্কুলের মেয়েদের সচেতন করতে ২০১৬ সালে দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পুলিশ  'স্বয়ংসিদ্ধা' প্রকল্পের সূচনা করেছিল। জেলা পুলিশের দাবি, প্রথম এক বছরেই তার অসামান্য় সাফল্য আসে। প্রকল্পের ওয়েবসাইটের তথ্য অনুযায়ী, চার বছরে স্বয়ংসিদ্ধার বার্তা পৌঁছেছিল ওই জেলারই ৩৮০টি স্কুলে। এরপরে জেলার ৮টি কলেজেও পৌঁছয় সেই বার্তা।

আরও পড়ুন, কয়েক সেকেন্ডে ক্যান্সার ধরে দেবে চিপ, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক দেখালেন নয়া দিশা

সূত্রের খবর,  'স্বয়ংসিদ্ধা' প্রকল্প মোট ৩৪০১৫ জন ছাত্রী এবং ১৮৪৪২ জন ছাত্রের পাশাপাশি ৭০২৭০ মানুষের কাছে  পৌঁছয়। কিন্তু সফল সেই প্রকল্প কোনও অজ্ঞাত কারণে গত ৬ মাস ধরে বন্ধ ওই জেলার স্কুল-কলেজে। এদিকে পুলিশের দাবি, স্বয়ংসিদ্ধা শুরুর পরে গত কয়েক বছরে দক্ষিণ ২৪ পরগনা থেকে মেয়ে পাচার কয়েক গুণ কমে গিয়েছিল। সচেতনতা শিবির থেকে পাঠ নিয়ে অনেক মেয়েই পাচারকারীর ডেরা থেকেও বেরিয়ে এসেছে। এমনকি মেয়েরাই পাচারকারীদের ধরিয়ে দিয়েছে এবং বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে সফল হয়েছে। 

আরও পড়ুন, 'ফ্রেশ' আটার প্য়াকেট থেকে উদ্ধার বিপুল পরিমাণ মাদক, গ্রেফতার ১

প্রথম এক বছর, প্রকল্পের সাফল্য দেখে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেটি সরকারি ভাবে চালানোর সিদ্ধান্ত নেন। ঘোষণা করেন, সব জেলায় স্বয়ংসিদ্ধা চালু হবে। সিআইডি, জেলা পুলিশ, ইউনিসেফ এবং রাজ্যের এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়া হয় শিবির করে এ বিষয়ে পড়ুয়াদের সচেতনতা বাড়ানোর জন্য়। অভিযোগ, মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা সত্ত্বেও গত কয়েক মাস স্বয়ংসিদ্ধা থমকে গিয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। পুরুলিয়া, শিলিগুড়ি এবং নদিয়ায় কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বিক্ষিপ্ত ভাবে কাজ চালাচ্ছে। বাকি জেলায় শুরুই হয়নি। অপরদিকে, দিল্লির যে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হাত ধরে স্বয়ংসিদ্ধার সূচনা, তার তরফে ঋষিকান্ত অবশ্য প্রকল্পটি নিয়ে আজও আশাবাদী। তিনি জানিয়েছেন, প্রকল্পের উদ্দেশ্য ছিল প্রতিটি মেয়েকে স্বয়ংসিদ্ধা করা। সেই কাজ মানুষের কাছেও পৌঁছেছিল। সাফল্যের সেটিই চাবিকাঠি। আপাতত বন্ধ হলেও ফের চালু হলে ফল মিলবেই।  

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios