তৃণমূল থেকে বিজেপি হয়ে ফের ঘাসফুলে ফিরলেন দক্ষিণ দিনাজপুরের বিজেপি নেতা বিপ্লব মিত্র। বিধানসভা নির্বাচনের আগে ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে আসায় উত্তরবঙ্গে স্বস্তি ফিরছে তৃণমূলে। মাত্র এক বছরেই বিপ্লববাবুর এই দল ছাড়ার ঘটনাকে অবশ্য় আমল দিচ্ছে না বিজেপি। দলীয় কোনও পদে ছিলেন না তাই প্রাক্তন তৃণমূল নেতার দল ছাড়াতে কোনও সমস্য়া হবে না বলে দাবি  করছেন দলের রাজ্য় সম্পাদক সায়ন্তন বসু।

এ নিয়ে মুখ খুলেছেন দলের রাজ্য় সভাপতি  দিলীপ ঘোষ। রাজ্য়  বিজেপির কান্ডারির দাবি, বিপ্লবাবু  নিরাপত্তা চেয়েছিলেন। কিন্তু সবাইকে তো নিরাপত্তা দেওয়া সম্ভব নয়। দলের অনেক কর্মীই মার খাচ্ছেন। রাজ্য়ে বিরোধীদের কী অবস্থা তা উনি উপলব্ধি করেছেন। রাজ্য় রাজনীতির ইতিহাস বলছে,দক্ষিণ দিনাজপুরের দাপুটে এই নেতা দীর্ঘদিন জেলা সভাপতির ঘর সামলেছেন। 

কিন্তু দ্বন্দ্ব বেধেছে গত লোকসভা নির্বাচনে। বঙ্গের ভোট রাজনীতির বলছে, লোকসভা নির্বাচনে  বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদারের কাছে পরাজিত হন তৃণমূলের অর্পিতা ঘোষ। এই পরাজয়ের জন্য বিপ্লব মিত্র ও তাঁর অনুগামীদের দায়ী করেন অর্পিতা। দলের মধ্য়ে কোন্দলের সূত্রপাত ঘটে যায়। পরবর্তীকালে বিপ্লব মিত্রকে জেলা সভাপতির পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

এদিকে বিজেপিতে যোগ দেন বিপ্লব মিত্র ও তাঁর অনুগামীরা। যদিও এবার তৃণমূলে যোগ দিয়ে বিপ্লব মিত্র বলেন, দলের অনেক দুঃসময়ে দলে থেকেছি। মাঝে কোনও কারণে সরে গিয়েছিলাম। নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে সারা দিয়ে আমার ভাই ও আমি আমাদের ঘরে ফিরে এলাম। দলকে শক্তিশালী করাটাই এখন আমাদের লক্ষ্য।