সাতসকালে কুড়ুল- দা হাতে সল্টলেকের রাস্তায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। বাড়ি থেকে বেরিয়ে বেশ কয়েকজন কর্মীকে নিয়ে ঘুরলেন সল্টলেকে।যেখানেই দেখেছেন রাস্তায় গাছ পরে আছে সেখানেই নেমে গাছের ডাল কেটে বা গাছের গুঁড়ি সরিয়ে দিচ্ছেন। ফাঁকা করে দিচ্ছেন রাস্তা। পরনে হাফ প্যান্ট ও গেঞ্জি পরেই বেরিয়ে পড়েন তিনি।

আমফান ঘূর্ণি ঝড়ের পর ৪ দিন কেটে গিয়েছে। সল্টলেকের বিভিন্ন রাস্তা সহ ব্লকের মধ্যে গাছ পড়ে রাস্তা বন্ধ হয়ে আছে। আজ সাত সকালে বেরিয়ে পড়েন দিলীপ ঘোষ। সল্টলেকে সিকে,একে,এজে,এসি ব্লকে রাস্তায় যেখানেই গাছ পড়ে থাকতে দেখেছেন তা কেটে রাস্তা পরিষ্কার করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। নিজে হাতে গাছ কাটলেন। তারপর রাস্তা থেকে গাছের গুঁড়ি সরিয়ে দেন। তিনি রাস্তা থেকে গাছ কেটে সরানোর জন্য বিজেপি কর্মীদের ডাকেন তিনি। তাঁর দেহরক্ষীদেরও দেখা যায় রাস্তায় পড়ে থাকা গাছ কেটে রাস্তা থেকে সরিয়ে দিতে।

দিলীপ ঘোষ জানান, গত তিনদিন ধরে সল্টলেকে আমাদের পাড়ার গাছপালা কেটে নিজের হাতে পরিষ্কার করা শুরু করেছি।  সমস্ত পাড়াতে গাছ পড়ে বন্ধ হয়ে গিয়েছে। গাড়ি বেরোচ্ছে না। সল্টলেকে সিনিয়র লোকেরা বেশি থাকেন। তাদের পক্ষে সব করা সম্ভব নয়। লোকও খুব কম। দেখছেন না বড় বড় বাড়িতে লোক নেই। কিন্তু গাছপালা রাস্তা বন্ধ হয়ে আছে। গাড়ির উপরে পড়ে আছে। আমি ঠিক করলাম দুজন তিনজনের কাজ নয় তাই কর্মীদেরও ডেকেছি। 

কাটারি কুরুল দিয়ে যতটা পারব রাস্তা পরিষ্কার করব যাতে পাড়ার লোক যাতায়াত করতে পারেন। তিনি বলেন পৌর নিগমের লোকজনকে আমরা দেখতে পারছি না। তাঁরা জলের ব্যবস্থা ঠিক করতে পারছে না, বিদ্যুতের ব্যবস্থা ঠিক করতে পারছে না। ধরে নিন আমরা সহযোগিতা করতে এসেছি সরকারকে। আমাদের দায়িত্ব আছে পাড়ার লোক হিসেবে। এটাও মানুষকে দেখার দরকার আছে। শুধু সরকারের উপর ভরসা করে বসে থাকলে হবে না। কোনো সরকারের পক্ষে সম্ভব নয়। সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমে যতটা সমস্যার সমাধান করতে পারেন। তাড়াতাড়ি হবে কাজটা। বাকি সরকার তাঁর মতো করুন। সাধারণ মানুষের কিছু করার দরকার আছে।