বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছিল ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর। তবে সাধারণ মানুষের জন্য মেট্রোর দরজা খুলল শুক্রবার। ভালবাসার দিন সকালে প্রথম মেট্রোর যাত্রী হতে এদিন এসেছিলেন বহু  উৎসাহী মানুষ।

প্রথম দিন ইতাহাসের সাক্ষী হতে ভিড় উপচে পড়েছিল সল্টলেক মেট্রোয়। অফিস যাত্রীরা তো ছিলেনই, অনেকে আবার এসেছিলেন কেবল কৌতুহলের বশে। ১৯৮৪ সালে কলকাতায় চলেছিল প্রথম মেট্রো। তারপর ৩৬ বছর বাদে আরও এক ইতিহাসের সূচনা হল শহরে। সেই মেট্রোর অনেক যাত্রীই ইতিহাসকে ঝালিয়ে নিতে সামিল হয়েছিলেন এই যাত্রায়। 

একে ভ্যালেন্টাইনস ডে, তার মধ্যে আবার ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো চালু হল বহু  বছরের প্রতিক্ষার পর। তাই সকাল থেকেই নতুন মেট্রো চড়তে উৎসাহীদের দল ভিড় জমিয়েছিল। টিকিট কাটার সঙ্গে সঙ্গে অবশ্য চমক অপেক্ষা করছিল। ভালবাসার দিনে মেট্রোর পক্ষ থেকে দেওয়া হল লাল গোলাপ।

 

 

বৃহস্পতিবারই ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর প্রথম পর্যায়ের উদ্বোধন করেছেন রেলমন্ত্রী পীযুষ গোয়েল। কলকাতা মেট্রোর থেকে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো অনেকটাই আধুনিক। নয়া ব্যবস্থায় যাত্রী নিরাপত্তায় ব্যাপারে  ভিষণ ভাবে জোর দেওয়া হয়েছে। যা দেখে খুশি যাত্রীরা।

আপাতত সল্টেলক সেক্টর ফাইভ থেকে সল্টলেক স্টেডিয়াম পর্যন্ত ৬টি স্টেশনের মধ্যে চলাচল করবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো। যার যাত্রাপথ ৪.৮ কিলোমিটার।  তবে কর্তৃপক্ষের আশা খুব শীঘ্রই যাত্রীদের জন্য ফুলবাগান পর্যন্ত মেট্রো পরিষেবা চালু করা সম্ভব হবে। আপাতত ২০ মিনিট অন্তর মিলবে পরিষেবা।  প্রতি স্টেশনে ট্রেন থামবে ২০ সেকেন্ড। ৫ টাকা দিয়েই চড়া যাবে মেট্রোতে। সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এই মেট্রো চলবে। প্রথম পর্যায়ে আপাতত ৫টি মেট্রো চলাচল করছে।