তাঁর অজান্তেই কি বদলে গেল মাধ্যমিকের মূল্যায়ণ পদ্ধতি? জল্পনা উসকে দিলেন খোদ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বানান বিতর্কে তাঁর প্রতিক্রিয়া, 'মার্কিং-এর ক্ষেত্রে যদি কোনওরকম পরিবর্তন হয়, তাহলে নিশ্চয়ই ব্যবস্থা নেব।'

আরও পড়ুন: হিন্দু হস্টেল ইস্যু নিয়ে প্রেসিডেন্সির পড়ুয়াদের টানা বিক্ষোভ, অবরুদ্ধ কলেজ স্ট্রিট

মাধ্যমিক পরীক্ষায় মূল্যায়ণ কীভাবে আর নির্ভুল করা যায়? তা নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। চলতি বছর থেকে চালু হচ্ছে একাধিক নতুন নিয়ম। বাংলা বটেই, মাধ্যমিকে অন্যন্য বিষয়ের পরীক্ষাতেও বানানের উপর কড়া নজর রাখা হত। যদি কোনও পরীক্ষার্থী ভুল বানান লিখত, সেক্ষেত্রে উত্তর সঠিক হলেও নম্বর কাটা যেত। কিন্তু এবার থেকে আর তেমনটা হবে না। সূত্রের খবর, নয়া নিয়মে বাংলা ছাড়া অন্য বিষয়গুলি ক্ষেত্রে বানান ভুল হলেও নম্বর অপরিবর্তিতই থাকবে! বস্তুত, এই নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ের প্রধান পরীক্ষকদের সঙ্গে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের কর্তারা বৈঠকও সেরে ফেলেছেন বলে জানা গিয়েছে। 

আরও পড়ুন: আরও ৪৮ ঘণ্টা বৃষ্টির পূর্বাভাস রাজ্যে, তবে দোলের আগেই হবে আবহাওয়ার উন্নতি

এদিকে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের এই নয়া নিয়মে জমে উঠেছে বিতর্ক। পরীক্ষকদের একাংশের আশঙ্কা, পরীক্ষার খাতায় যদি নম্বর যদি নম্বর কাটা না যায়, তাহলে বানান-সম্পর্কে পড়ুয়াদের যত্ন আরও কমবে। তাতে আখেরে ক্ষতিই হবে তাদের। কেউ কেউ আবার বলছেন, প্রতি বছর মাধ্যমিক পরীক্ষার পরই পরীক্ষকদের কাছে এমন নির্দেশ পাঠায় পর্ষদ। স্পষ্ট বলে দেওয়া হয়, যে  ‘উত্তর শুদ্ধ হলে পুরো নম্বর দেবেন, বানানের হেরফের হলেও নম্বর কাটা যাবে না।' তবে এবার এই নির্দেশের বদল দরকার।   যদিও এ বিষয়ে খোদ মধ্যশিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান কল্য়াণময় গঙ্গোপাধ্যায়ের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।