প্রেসিডেন্সি পড়ুয়াদের টানা বিক্ষোভের দরুণ অবরুদ্ধ কলেজ স্ট্রিট। মহাত্মা গাঁধী রোডে অবরোধ চলায় কার্যত ব্যাহত হচ্ছে হাওড়া-শিয়ালদহ যান চলাচল। যার জেরে চরম ভোগান্তি নিত্য় যাত্রীদের৷ হিন্দু হস্টেল ফিরিয়ে দেওয়া ও হস্টেল কর্মীদের পুনর্বহালের দাবিতেই প্রেসিডেন্সি পড়ুয়ারা এই বিক্ষোভ শুরু করেন। 

আরও পড়ুন, বিকেলের পরই ব্রজবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা, এখনই কাটছে না দুর্যোগ

সূত্রের খবর, হিন্দু হস্টেল ফিরিয়ে দেওয়া ও হস্টেল কর্মীদের পুনর্বহালের দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা থেকে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন প্রেসিডেন্সির পড়ুয়াদের একাংশ। উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়ার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান দাবি করেন পড়ুয়ারা। কিন্তু উপাচার্য জানিয়ে দিয়েছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে কথা বলবেন না তিনি। তাই রাস্তা অবরোধ করে সমস্যার কোনও সমাধান মিলবে না।

আরও পড়ুন, এবার আন্তর্জাতিক নারীদিবসেও নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতা

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য়, কিছুদিন আগে পড়ুয়াদের অবস্থানের জেরে দীর্ঘদিন ধরে ঘেরাও ছিলেন উপাচার্য অনুরাধা লোহিয়া। হিন্দু হস্টেল নিয়ে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং পড়ুয়াদের মধ্যে বিবাদ লেগেই রয়েছে। বেশ কয়েকদিন আগে এই হস্টেলের ৩, ৪ এবং ৫ নম্বর ওয়ার্ড খালি করার দাবি জানায় ছাত্রছাত্রীরা। অভিযোগ, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দাবিপূরণের আশ্বাস দিলেও সমস্যার  এখনও সমাধান হয়নি। তাঁদের দাবিগুলি হল, হস্টেলের মেস স্টাফের সংখ্যা বাড়ানো এবং বিনা নোটিসে কোনও কারণ ছাড়া মেস স্টাফ ছাঁটাই করার জবাব তলব।  এর পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের দাবি, হস্টেল আবাসিকদের নিয়ে ওয়েলফেয়ার কমিটি গঠন করতে হবে।  

আরও পড়ুন, আপাতত স্বস্তিতে পোল্যান্ডের ছাত্র কামিল, দেশে থাকার অনুমতি ১৮ মার্চ

অপরদিকে বৃহস্পতিবার, প্রথমে মিছিল করে প্রেসিডেন্সির পডু়য়ারা। বিশ্ববিদ্য়ালয় ক্যাম্পাস থেকেই শুরু হয় মিছিল । তারপর কলেজ স্ট্রিট মোড়ে মিছিল পৌঁছালে সেখানেই অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করে পড়ুয়ারা। মেসে স্টাফ না থাকার ফলে অনাহারে থাকতে হচ্ছে বোঝাতে তারা থালা-বাসন বাজিয়ে মিছিল করতে থাকেন। পড়ুয়াদের স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, প্রেসিডেন্সি উপাচার্য এবিষয়ে সমাধান না দিলে তাদের বিক্ষোভ জারি থাকবে।