আপনার ঘরের কোনায় বা কাজের ডেস্কে একটি ছোট গাছের টব ঘরের শোভা বাড়ায়। কিন্তু ইন্ডোর প্লান্ট করতে গিয়েই বেশির ভাগ মানুষ পিছিয়ে আসেন কিছু কথা ভেবে। অনেক ভাবেন গাছ করা অনেক সময়সাপেক্ষ ব্যাপার কিংবা আবার কেউ টাকার কথা ভেবে পিছিয়ে আসেন। সবাই জানে,পরিবেশ সুন্দর রাখতে গাছের কত বড় ভূমিকা। তা ছাড়া গাছের সবুজ রঙ চোখের পক্ষে বেশ উপকারী। কারণ বাজারে বেশির ভাগ ইন্ডোর প্লান্টের দাম যথেষ্ট বেশি। তবে কম খরচে খুব সহজেই আপনিও সুন্দর গাছ দিয়ে ঘর সাজাতে পারেন। 

আরও পড়ুন, কাটা আঙুল জোড়া লাগাল আরজি কর, প্রাণ ফিরে পেলেন যুবক

ঘরের কোনের সবুজ অ্যালোভেরা অথবা বারান্দার লম্বা মানি প্লান্টের শোভায় অবাক করে দিতে পারেন অতিথিদের। তবে লাগবে না বেশি টাকা। রোজকার রুটিন থেকে কয়েক মিনিট সময় দিলেই সুন্দর-সতেজ থাকবে এই গাছগুলি। মাথায় রাখবেন, ইন্ডোর প্লান্টেরও পর্যাপ্ত সূর্যের আলো প্রয়োজন। অবশ্য় যা আপনি করতে পারবেন একেবারে কম খরচেই। তাহলে জেনে নেওয়া যাক নিন পাঁচ গাছের বিষয়ে।

১) মাদার ইন লস টাঙ, বেশ মজাদার নামের এই গাছ দেখতেও বেশ অন্যরকম। গাছটি ইদানিং ইন্টিরিয়ার ডিজাইনারদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। লম্বা কালচে সবুজ পাতার দুই পাশে টানা হলুদ দাগ। অক্সিজেনের মাত্রাও অনেক বাড়িয়ে দেয়।  

২) রাবার গাছ, অন্যান্য গাছের তুলনায় এই গাছের আকার বেশ বড়। তাই ঘরের দালানে বা বারান্দায় বেশ সুন্দর লাগে এই গাছ।  দামও খুব বেশি না। ঘরের অক্সিজেনের মাত্রা বৃদ্ধি করে এই গাছ। কালচে সবুজ পাতার এই গাছ আপনার গৃহসজ্জায় মূল আকর্ষণ হবে।

আরও পড়ুন, পার্কসার্কাসে এটিএম কার্ডের ক্লোনিং চক্রের পর্দা ফাঁস, সতর্ক করল কলকাতা পুলিশ

৩) মানি প্লান্ট, এই গাছটির সঙ্গে প্রায় প্রত্যেকেই পরিচিত। এই গাছ রাখতে পারেন আপনার কাজের ডেস্কে অথবা বইয়ের তাকে।
  
৪) অ্যালোভেরা গাছের ছবি সকলেই দেখেছেন। আপনার বারান্দার শোভা বাড়াবে এই গাছ। শুধু তাই নয়, অ্যালোভেরার প্রচুর গুণও আছে। অ্যালোভেরার রস যে কোনও ধরনের ত্বকের পক্ষে উপকারি।

৫) এরিকা পাম, এই গাছের পাতা সুপারি গাছের মতো। অন্যান্য গাছের তুলনায় এই পাতায় বেশি অক্সিজেন উৎপাদন হয়। ঘরের কোনে রাখলে বেশ সুন্দর লাগে এই গাছ। দেখভাল করা সহজ ও দামও হাতের নাগালের মধ্য়েই।