ফের সক্রিয় রাজ্যপাল। এবার মুর্শিদাবাদের শিক্ষক পরিবার খুন নিয়ে প্রশ্ন তুললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। ঘটনায় সবাই চুপ কেন তা নিয়েও সওয়াল করেছেন তিনি। স্বাভাবিকভাবেই রাজ্যপালের এই বিবৃতি নিয়ে সরগরম হতে চলেছে রাজ্য রাজনীতি।

মুর্শিদাবাদের জিয়াগঞ্জে শিক্ষক ও তাঁর পরিবার খুনে ক্রমেই দানা বাঁধছে রহস্য। ২দিন কেটে গেলেও এখনও খুনের কিনাড়া হয়নি কিছুই। সেই নিয়ে এদিন মুখ খুললেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। দশমীর দিনে দুপুরে জিয়াগঞ্জের বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় প্রকাশ পাল তাঁর স্ত্রী বিউটি ও আট বছরের ছেলের নিথর দেহ। সম্প্রতি ওই শিক্ষক তাঁদের কর্মী ছিলেন বলে দাবি করেছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘ। এই খুন নিয়ে মুখ খুলেছেন বিজেপির মুখপাত্র সম্বিত পাত্র। 

এদিন ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন রাজ্যপাল। তিনি বলেন,আমি আজ একটি খুব গুরুতর সমস্যার কথা শুনলাম । আমি গভীর বেদনার সাথে বলছি ,আমার হৃদয় থেকে রক্তক্ষরণ হওয়ার মতো অবস্থা হয়েছে। আমার চোখে জল চলে এসেছে। মুর্শিদাবাদে যা ঘটেছে তা একটি নির্মম হত্যাকাণ্ড, মানবতাকে লজ্জিত করে। একজন শিক্ষক ও তাঁর গর্ভবতী স্ত্রী হত্য়া একটা বর্বর ঘটনা। আট বছরের একটি শিশু পর্যন্ত মারা গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ । আমরা যে পরিস্থিতির উপর বাস করছি, এটা তার অত্যন্ত গুরুতর প্রতিফলন।  আমি কর্তৃপক্ষকে দ্রুত নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য অনুরোধ করব।

এই বলেই অবশ্য থেমে থাকেননি রাজ্যপাল। সল্টলেক জিডি ব্লকে প্রাক্তন ফুটবলার প্রদীপ কুমার ব্যানার্জির বাড়ি থেকে বেরিয়ে রাজ্যপাল বলেন, আমি টুইট করার পরও কোনও তরফ থেকে কোনও প্রতিক্রিয়া আসেনি। যাতে আমি আরও অবাক হয়েছি। তবে রাজ্যাপলের এই কথা কানে লেগেছে রাজ্য রাজনৈতিক মহলের। তাদের মতে, কারও প্রতিক্রিয়া আসেনি বলতে রাজ্য সরকারকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন তিনি।