শুক্রবার প্রকাশিত হল রাজ্যের জয়েন্টের ফলাফল। পরীক্ষার্থীর  ৯৯ শতাংশ র‌্যাঙ্ক পেয়েছেন। আর এর সঙ্গে সঙ্গেই  কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া নিয়ে চিন্তা শুরু পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের। তবে এবার করোনার জেরে  প্রতিবছরের মতো এবারের কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া একই রকম থাকছে না। এবার কলেজে রিপোর্টিং -সহ পুরোটাই হবে অনলাইনে।

আরও পড়ুন, রাজ্য জয়েন্টে প্রথম দশে কলকাতার জয়জয়কার, কৃতিরা ক্রিকেট থেকে ক্যারাটে সবেতেই ওস্তাদ


রাজ্যে সরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ রয়েছে ১০টি, যেখানে আসন সংখ্যা  ২০৫৩টি। বেসরকারি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ ৮৬টি, যেখানে আসন সংখ্যা ২৮,‌৪৯৩টি। ১১টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে , যেখানে আসন সংখ্যা ২২৮৩টি। এছাড়াও রয়েছে ৯টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, আসন সংখ্যা ২০৬২টি। মোট ১১৬ টি প্রতিষ্ঠানে আসন সংখ্যা থাকছে ৩৪৮৯১ টি। জয়েন্ট এন্ট্রান্স বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান দিলীপকুমার মিত্র জানিয়েছেন, আগামী ১২ অগাস্ট থেকে অনলাইনে কাউন্সেলিং প্রক্রিয়া শুরু করা হবে। যে সকল পরীক্ষার্থী এই বছর র‌্যাঙ্ক পেয়েছেন, তাঁদের কাউন্সেলিংয়ের ক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন ফি দিতে হবে না। জয়েন্ট বোর্ডের পক্ষ থেকে যে সমস্ত কমন সার্ভিস সেন্টার করা হয়েছে সেগুলিই ছাত্ররা ব্যবহার করতে পারবেন। মোট ১৭২৮৮টি কমন সার্ভিস সেন্টার করা হয়েছে বোর্ডের পক্ষ থেকে। অনলাইন কাউন্সেলিংয়ের ক্ষেত্রে ডকুমেন্ট আপলোডিং, রেজিস্ট্রেশন, সবই এখানে বিনামূল্যে করা যাবে। কোথায় কোথায় এই কমন সার্ভিস সেন্টার রয়েছে, সেগুলি পরিক্ষার্থীদের জানিয়ে দেবে জয়েন্ট বোর্ড।

আরও পড়ুন, প্রকাশিত জয়েন্ট এন্ট্রান্সের ফল, ইঞ্জিনিয়ারিং-এ প্রথম রায়গঞ্জের সৌরদীপ

অপরদিকে, এবারে পুরো কাউন্সেলিং প্রক্রিয়াই হবে অনলাইনে। গোটা প্রক্রিয়ায় কোনও সমস্যায় পড়লে পড়ুয়াদের জন্য দুটি টোল ফ্রি নম্বর দেওয়া হয়েছে, ১৮০০-১০২৩-৭৮১ এবং ১৮০০-৩৪৫০-০৫০ ।প্রত্যেকটি রাউন্ডে পড়ুয়ারা রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন, কোন প্রতিষ্ঠানে তিনি পড়তে চান, সে বিষয়ে পছন্দ দিতে পারবেন। তবে একজন সর্বাধিক ২০টি 'চয়েস'‌ দিতে পারবেন। প্রত্যেক রাউন্ডে চয়েসগুলিকে লক করতে হবে।