প্রভাব খাটিয়ে ছেলেকে মুক্ত করতে চাইছেন? তেমনই অভিযোগ উঠছে বৈশালী ডালমিয়ার বিরুদ্ধে। বিজেপি নেত্রী বৈশালী ডালমিয়ার বিরুদ্ধে এর আগেও এমন অভিযোগ উঠেছে বলে সূত্রের খবর। সোমবার সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ স্ত্রী, ছেলে ও মাসি কল্যানী রায়কে নিয়ে ই এম বাইপাসের ধারে একটি বেসরকারি হাসপাতালে ডাক্তার দেখাতে যাচ্ছিলেন পারিজাত লাহা নামের এক ব্যক্তি। 

সেই সময় বেহালা চৌরাস্তা থেকে জেমস লঙের দিকে যাওয়ার সময়, পারিজাতের গাড়ির সঙ্গে বৈশালী ডালমিয়ার ছেলে আদিত্য ডালমিয়ার গাড়ি গা ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। সেই ঘটনার থেকেই শুরু হয় তীব্র বচসা। তর্কাতর্কি বাঁধতেই প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ বৈশালির ছেলে গাড়ি থেকে নেমে এসে পারিজাত, তাঁর স্ত্রী লিপিকাকে মারধর করে। এমনকী গাড়ির আয়না, ওয়াইপার আদিত্য ভেঙে দেয় বলে অভিযোগ।

তবে এই সব ঘটনা মানতেই চাননি বৈশালী ডালমিয়া। তিনি ছেলের শারীরিক পরীক্ষার রিপোর্ট হাতে সাংবাদিকদের বলেন তাঁর ছেলেকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মারধর করা হয়েছে। তাঁর ছেলে গাড়ির মধ্যে বসেছিল, ওই ব্যক্তি সেই গাড়ির কাঁচ ভেঙে দেয়। বৈশালী ডালমিয়ার আরও অভিযোগ, তাঁর ছেলে কখন বাড়ি থেকে বেরোচ্ছে, সেই ভাবে অনুসরণ করে ঘটনাটি ঘটিয়েছে ওরা।

তিনি অভিযোগ করেন, তাঁকেই মূলত মারতে এসেছিল । কিন্তু কাদের বিরুদ্ধে এত অভিযোগ তুলছেন বৈশালী, তা খোলসা করে বলেননি তিনি। যদিও বেহালা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তবে সূত্রের খবর থানায় রয়েছেন পারিজাত লাহা। অন্যদিকে, তাঁর অসুস্থ মাসি বসে রয়েছেন গাড়িতে। 

এই পরিস্থিতিতেও নিজের প্রভাব খাটিয়ে ছেলেকে মুক্ত করার চেষ্টায় রয়েছেন বৈশালী বলে অভিযোগ উঠছে। এর আগেও থানায় একাধিকবার আটকে রাখা হয় বৈশালীর ছেলেকে। তখনও নিজের রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ছেলেকে মুক্ত করার চেষ্টা করেছিলেন বৈশালী বলে অভিযোগ।