প্রবল রোদের দোসর হবে প্যাঁচপ্যাঁচে ঘাম। লকডাউনে বাইরে বেরোলে পুলিশের থেকে বেশি ভোগাবে মহানগরের আবহাওয়া। রাতের ঠান্ডা হাওয়া সকাল হতেই উধাও। ফলে করোনার পাশাপাশি এদিন কলকাতাকে চিন্তায় রাখবে গরম।

শরীর 'পোড়াবে' সূর্যদেব, করোনার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চড়ছে পারদ

আলিপুর আবহাওয়া দফতর বলছে, বঙ্গোপসাগরে বিপরীত ঘূর্ণাবর্ত ও উচ্চচাপ বলয়ের ফলে প্রচুর জলীয়বাষ্প ঢুকছে মহানগরে। গতকালই কলকাতায় তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি ছুঁয়েছে। হাওয়া অফিস বলছে, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উপর দুটি ঘূর্ণাবর্ত রয়েছে। যার জেরে শনিবার পর্যন্ত ঝড়-বৃষ্টি হবে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গের সাত জেলায়।

কলকাতার বুকে ধেয়ে আসছে ঝড়, লকডাউনে তাণ্ডব চালাবে কালবৈশাখী.

আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, উত্তর পশ্চিমের শীতল হাওয়া ও পুবালি হওয়ার সংঘাতে প্রায় প্রতিদিনই বৃষ্টি হবে এই কদিন। বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি হবে মূলত উপকূলের জেলাগুলিতে। কলকাতাতেও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে সামান্য। খুব বেশি বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। তবে বিকেল হতেই ঝোড়ো হাওয়া বাড়ি মারবে দরজা ,জানালায়। 

আজও পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর,ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, কলকাতা ও দুই 24 পরগনায় ঝড় বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। উত্তরবঙ্গের দার্জিলিং, কালিম্পংয়েও হালকা বৃষ্টি হতে পারে। কলকাতায় আংশিক মেঘলা আকাশ বিকেলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিকের থেকে ডিগ্রি বেড়ে গেছে। গতকাল বিকেলে তাপমাত্রা ছিল ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আপেক্ষিক আদ্রতা সর্বোচ্চ ৯৪ শতাংশ হয়েছে।

লকডাউনে বন্দিদশায় কলকাতা, ভরসা জোগাতে আমরা করব জয় গাইছে পুলিশ

আগামী ২৪ ঘণ্টায় জম্মু-কাশ্মীর সহ উত্তর-পশ্চিম ভারতের কিছু এলাকায় বৃষ্টির সম্ভাবনা। নতুন করে আরও একটি পশ্চিমী ঝঞ্ঝা ঢুকবে রবিবার। ইতিমধ্য়েই আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়ে দিয়েছে,এপ্রিলের প্রথম ভাগ থেকে তাপ প্রবাহের দাপাদাপি থাকবে রাজ্য়ে। আগামী দিনে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস হতে পারে এই পারদের মাত্রা।

এপ্রিল-মে জুন এই তিন মাসে রাজ্য়ে বেশকিছু জায়গায় তাপপ্রবাহ বাড়বে। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা গণেশ কুমার দাস জানান, পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলি জুনের মধ্যেই লু বওয়ার  সম্ভাবনা রয়েছে।  ৪০ শতাংশ পর্যন্ত গরমের প্রকোপ বেড়ে যাবে। দেশে গড় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা অনেকটা বাড়তে পারে রাজস্থান এবং গুজরাতে।