বাইরে বের হলেই গায়ে জ্বালা ধরা গরম, সঙ্গে অসহ্য ঘাম। চরম আর্দ্রতার জেরে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। তবে বৃষ্টির স্বস্তির খবর শোনাল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। হাওয়া অফিস জানিয়েছে আগামী দু-তিন ঘন্টার মধ্যেই বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে দক্ষিণবঙ্গে। ফলে উত্তাপের পারদ নামার সম্ভাবনাও তৈরি হয়েছে। তবে কোথায় কোথায় বৃষ্টি হবে, সেই সব এলাকার নাম জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। 

হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে আলিপুর হাওয়া অফিস। জানানো হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণা জেলার বেশ কিছু অংশে বৃষ্টি হতে পারে। তবে বৃষ্টি ভাগ্য আজ খারাপ শহর কলকাতার। এদিন মহানগরীর তাপমাত্রার পতন হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।  

 

এদিকে, প্রবল এই দাবদাহ থেকে এখনই স্বস্তি পাওয়ার কোনও পূর্বাভাস নেই। সাময়িক ঝড়-বৃষ্টিতে কিছুটি স্বস্তি মিললও বঙ্গে বর্ষা আসতে এখনও প্রায় ৯-১০ দিন দেরি হবে। ইন্ডিয়ান মেটিরিওলজিক্যাল  ডিপার্টমেন্ট বা IMD জানিয়েছে ১৫ জুনের মধ্যে বর্ষা ওড়িশা, ঝাড়খণ্ড, পশ্চিমবঙ্গ, ও বিহারের কিছু অংশকে আঘাত হানতে পারে। তবে দক্ষিণ পূর্ব মৌসুমি বায়ু শক্তিশালী হয়ে মহারাষ্ট্র, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ু, তেলাঙ্গনা, কর্নাটক, তামিলনাড়ুর অবশিষ্ট অংশে  আরও এগিয়ে যাবে বলেও জানিয়েছে ভারতের আবহাওয়া দফতর। 

হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস আনুযায়ী আগামী পাঁচ দিন উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিতে প্রবল বৃষ্টি  হতে পারে। অরুণাচল প্রদেশ, অসম ও মেঘালয়তে আগামী ১০ জুন পর্যন্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে বলেও জানান হয়েছে। আইএমডির জাতীয় আবহাওয়া পূর্বাভাস কেন্দ্রের রাজেন্দ্র জেনামনি জানিয়েছেন, ৭-৮ জুনের মধ্যে বৃষ্টিপাতের প্রক্রিয়া শুরু হবে। ১১ জুন বঙ্গোপগারে নিম্নচাপের অঞ্চল তৈরি হবে বলে আশা করা হচ্ছে। আর নিম্নচাপই বাংলা, ওড়িশা ও সংলগ্ন রাজ্যগুলি বর্ষার আগমন তরান্বিত করতে পারে। 

আজ তরাই-ডুয়ার্স ও রাজ্যের পার্বত্য অঞ্চলে প্রবল বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলা ৮ জুন বর্ষা আসার কথা। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস অনুযায়ী নির্ধারিত দিনের থেকে কিছুটা হলেও পিছিয়ে যাবে বর্ষা আসার সময়সূচি। জুন মাসে গোটা দেশে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ স্বাভাবিক থাকবে বলেও জানান হয়েছে হাওয়া অফিসের পক্ষ থেকে। আগামী পাঁচ দিন গোটা দেশে কোথাও তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস নেই বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।