বিজেপির মুখপাত্র বলেছিলেন আগেই। এবার রাজ্য়পাল জগদীপ ধনখড় নিয়ে আরও একধাপ এগোলেন মুখ্যমন্ত্রী। নাম না করে বিধানসভায় 'রাজ্যপালকে তু চিজ বড়ি হে মস্ত মস্ত' বললেন  মমতা। সংবিধান দিবস নিয়ে আয়োজিত বিধানসভার অনুষ্ঠানে এই মন্তব্য় করেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য়পাল বিধানসভার সংবিধান দিবসে এলেও রাজভবনের সংবিধান দিবস পালন অনুষ্ঠানে গেলেন না মুখ্যমন্ত্রী।    

সংবিধান দিবসের অনুষ্ঠানেও  রাজ্যপাল-মুখ্যমন্ত্রী সংঘাত জারি রইল। দেখেও বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রীকে এড়িয়ে যান রাজ্যপাল। মমতার সঙ্গে কথা না বললেও বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নানের সঙ্গে কথা বলেন ধনখড়। এমনকী তিনি কেমন আছেন জানতে চান রাজ্যপাল। পরে নিজের ভাষণে কাশ্মীর নিয়ে মোদী সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি  বলেন ,কাশ্মীরে শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের স্বপ্নকে সফল করেছেন নরেন্দ্র মোদী। তাঁকে জঙ্গি দমনে সমর্থন করা উচিত। এই বলেই থেমে থাকেননি রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান। নাম না করে তৃণমূল সরকারকে কাঠগড়ায় তোলেন।  রাজ্যপাল বলেন, পশ্চিমবঙ্গে কার্যত চ্যালেঞ্জের মুখে কাজ করতে হচ্ছে আমাকে। সাংবিধানিক অধিকারের সঙ্গে সমঝোতা করতে হচ্ছে। এমনকী এই অনুষ্ঠানে তাঁকে শেষ মুহূর্তে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। 

পাল্টা বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্যপালের তুলোধোনা করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, আগে অনেক রাজ্যপালের সঙ্গে কাজ করেছি। এমন তিক্ত পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। সকাল থেকে রাত অবধি বিভিন্নভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। তার মধ্যেও সাহস নিয়ে আমরা কাজ করে চলেছি। অনেকের কথা শুনে ইদানীং হাসি পায়। ওই যে একটা গান আছে না- তু চিজ বড়ি হ্যায় মস্ত মস্ত। এখানেই থেমে থাকেননি মুখ্য়মন্ত্রী। তিনি বলেন,আমরা জানি তো আপনাকে কে পাঠিয়েছেন, আর কেন পাঠিয়েছেন। সাংবিধানিক প্রধানের কতটা এক্তিয়ার রয়েছে তাও জানি। রাজভবনে কাট আউট লাগাবেন কিনা সেটা এবার ভাবতে বলুন।