লাদাখ নিয়ে সর্বদল বৈঠকে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীর পাশে থাকার বার্তা দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়। সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, এদিন প্রধানমন্ত্রীর সর্বদল বৈঠকে তিনি বলেন, আমরা সবাই সরকারের সঙ্গে আছি। সবাইকে নিয়ে ভাবুন, সবাইকে নিয়ে চলুন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, চিন গণতান্ত্রিক দেশ নয়। তাদের একনায়কতন্ত্র রয়েছে। যা মনে করে, তারা করতে পারে। অন্যদিকে, আমাদেরকে একসঙ্গে কাজ করতে হয়। ভারত জিতবে, চিন হারবে। ঐক্যের কথা বলতে হবে। ঐক্যের কথা ভাবতে হবে, ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। আমরা দৃঢ়ভাবে সরকারের পাশে রয়েছি।

এই বলেই অবশ্য থেমে থাকেননি তৃণমূল নেত্রী। তিনি বলেন, দেশে যাতে টেলিকম, অ্যাভিয়েশন বা রেলে চিনকে ঢুকতে না দেওয়া হয়। সরকার যেন সেই দিকে নজর রাখে। মমতার মতে, এতে সাময়িক  অসুবিধে হলেও চিনকে ঢুকতে দেওয়া যাবে না। গালওয়ান উপত্যকায় চিনা বাহিনীর আক্রমণে নিহত হয়েছেন ২০ ভারতীয় সেনাকর্মী। চিনের সরকারি মুখপত্র গ্লোবাল টাইমস -এর খবর অনুযায়ী ভারতের জওয়ানদের সঙ্গে সংঘর্ষে চিনেরও ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। 

জানা গিয়েছে, ভারতীয় জওয়ানদের পরাক্রমে চিনের ৩৫ জন সেনা মারা গেছে। আহত হয়েছে আরও ১০ জন। ইতিমধ্যেই একাধিক ফাইটার জেট মোতায়েন করা হয়েছে সীমান্তে। সীমান্তে উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ে দিল্লিতে দফায় দফায় চলছে বৈঠক। এদিন লাদাখ নিয়ে আলোচনায় সর্বদলের ডাক দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। চিনের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে, তা নিয়েই এই বৈঠক ছিল। সেই বৈঠকে উপস্থিতি ছিলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।