তফশিলি জাতি-উপজাতির মানুষদের জন্যে পেনশন দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই অনুযায়ী,আগামী ১ এপ্রিল থেকে তফশিলি জাতি উপজাতি ও আদিবাসী প্রবীণ নাগরিকদের জন্য ১ হাজার টাকা পেনশন দেবে রাজ্য সরকার। নবান্ন সূত্রে খবর, নতুন অর্থবর্ষ থেকে এই প্রকল্প চালু করতে সরকারি আধিকারিকদের কাছে ইতিমধ্য়েই নির্দেশ জারি  হয়েছে।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টির সম্ভাবনা কলকাতা সহ রাজ্যে, রাত পেরোলেই নামবে পারদ

যাঁরা বিভিন্ন প্রকল্পে ৬০০ থেকে ৭৫০ টাকা করে পেনশন পেতেন, তাঁরাও ১ এপ্রিল থেকে এক হাজার টাকা করে পেনশন পাবেন। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘোষণা মতো ইতিমধ্যে নির্দেশিকা জারি করেছে অর্থ দফতর। বিভিন্ন জেলাশাসকের  কাছে জারি করা হয়েছে ফরমান। কিছুদিন আগেই বিধানসভা উপনির্বাচনে এই কালিয়াগঞ্জ থেকে জয় পেয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। যার পুরস্কারস্বরূপ আগেই বহু প্রকল্পের কথা শোনা গিয়েছিল ঘাসফুল নেতাদের মুখে। কদিন আগে কালিয়াগঞ্জে এসে সেই প্রকল্পগুলিই ঘোষণ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

''রানির বাড়িতে' করোনার ভয়, বন্ধ ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল

মূলত, রায়গঞ্জে সংগঠন শক্তিশালী করেছে বিজেপি। অতীতের ভোটেও সেই পরিসংখ্যান কলীঘাটের চিন্তা বাড়িয়েছে। পুরসভা ভোটের আগে তাই এই অঞ্চলের জন্য় মমতা যে দরাজ হবেন, তা আর বলা অপেক্ষা রাখে না। ইতিমধ্য়েই রাজ্য়বাসীর সুবিধার্থে ' জয় বাংলা' নামে একটি প্রকল্প চালু করা হচ্ছে । তফশিলি সম্প্রদায়ের মানুষ যাদের ৬০ বছর বয়স হয়েছে, প্রতি মাসে তাদের ১ হাজার টাকা করে পেনশন দেবে  রাজ্য় সরকার। এখানেই শেষ নয়, আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষ যাদের ৬০ বছর বয়স হয়েছে, তারাও ' জয় জোহার' প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতিমাসে ১ হাজার টাকা করে পেনশন পাবেন। 

করোনা আতঙ্ক, মহারাজের প্রণাম বন্ধ বেলুড় মঠে

 এই পেনশন দিতে ২২০০ কোটি টাকা খরচ হবে রাজ্য় সরকারের। নির্বাচনের মুখে ১৮ লক্ষ তফসিলি জাতি ও চার লক্ষ তফসিলি উপজাতি সম্প্রদায়ভুক্ত ব্যক্তিকে এক হাজার টাকা করে পেনশন দেওয়া হবে। সম্প্রতি কালিয়াগঞ্জে চারটি রাজ্য়  সরকারি প্রকল্পের  কথা ঘোষণা করেন মুখ্য়মন্ত্রী। উত্তরবঙ্গে পুরসভা নির্বাচনের আগে যা দেখে বলাই যায়, 'অ্যাডভান্ডেজ' মমতা।   

কালিয়াগঞ্জের সভা থেকে নতুন কয়েকটি প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। মমতা বলেন, " বহু মানুষ ঘর পায়নি বলে দিদিকে বলো-তে অভিযোগ জানিয়েছিল। আমাদের সরকার তাদের কথা চিন্তা করে কয়েকটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গৃহহীন মানুষের জন্য আমরা " স্নেহালয়" নামে একটি প্রকল্প চালু করছি।বর্তমানে চালু থাকা সরকারি আবাস প্রকল্পের বাইরে এই প্রকল্প। যারা বাড়ির জন্য কোনওরকম আর্থিক সাহায্য পায়নি,তারা এই স্নেহালয় প্রকল্পের আওতায় আসবে।তাদের এককালীন ১ লাখ ২০ হাজার টাকা দেওয়া হবে।

এছাড়াও সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্পের আওতায় এদিনই কর্মসাথী নামে একটি প্রকল্প চালু করেছে রাজ্য়। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতি বছর ১ লাখ বেকার যুবক ব্যবসা করার জন্য ২ লাখ টাকা করে অনুদান পাবে। নতুন এই চারটি প্রকল্প এদিন থেকেই চালু করা হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় যারা আসবে, তারা স্থানীয় বি ডি ও অফিসে সাদা কাগজে একটা লিখিত দরখাস্ত করলেই তাদের সুবিধা পাবে।