মিনিস্টার, টালিগঞ্জের এমএলএ আমার কাকু। এটা হল আমার ইন্ডাস্ট্রি ও টালিগঞ্জের স্ট্রং ব্যাকগ্রাউন্ড।’ ঠিক এভাবেই উঠতি মডেলকে কাজ পাইয়ে দেওয়ার টোপ দেখিয়ে তোলা তোলে এক যুবক। খোদ মন্ত্রীর এফআইআর-এ গ্রেফতার করা হল যুবককে। রণজিৎ বিশ্বাস ওরফে আকাশ নামে ওই যুবককে সোমবার রাতেই গ্রেফতার করেছে রিজেন্ট পার্ক থানার পুলিশ।

রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের ‘ভাইপো’ পরিচয়ে টলিউডে মহিলা মডেলদের কাজ পাইয়ে দেওয়ার টোপ। শুধু তাই নয়, মন্ত্রীর ভাই স্বরূপ বিশ্বাসের ছেলে বলে নিজেকে পরিচয় দিয়ে একাধিক মহিলা ও তরুণী মডেলের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি করেছে বলেও অভিযুক্ত যুবক দাবি করেছে। প্রতারণার ফাঁদে পড়া এমনই এক উঠতি অভিনেত্রী-মডেল ওই প্রতারক যুবকের ছবি দিয়ে কিছু হোয়টসঅ্যাপ স্ক্রিনশট ফেসবুকে পোস্ট করেন। তা নজরে পড়তেই মন্ত্রী নিজে এফআইআর দায়ের করেন রিজেন্ট পার্ক থানায়।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঝাড়গ্রাম থেকে কলকাতায় এসে মডেলিংয়ে কাজ শুরু করা তরুণী সঙ্গে কিছুদিন আগে ফেসবুকে আকাশ বিশ্বাসের পরিচয় হয়। কাজ পাইয়ে দেবে বলে তাঁর কাছে ১০ হাজার টাকা চায় আকাশ। কিন্তু অপেক্ষার পরও কাজ না পেয়ে মেয়েটি টাকা ফেরৎ চায়। সেই টাকা আকাশ ফেরত দিতে অস্বীকার করলে সেখান থেকেই বিবাদের সূত্রপাত।

অভিযোগ, হোয়াটসঅ্যাপে তিনটি মেয়ের নানা মডেলিংয়ের ছবি দিয়ে তাঁর সঙ্গে শারিরীক ঘনিষ্ঠতার ইঙ্গিত দেয়। দাবি করে, “এই তিনটি মেয়ে কাজের আগেই ব্যক্তিগতভাবে আমার ঘনিষ্ঠ হয়েছিল।” চাইলে, জেদ করলেই সে এমন অনেক ‘এনজয়’ করতে পারে বলেও অশালীন ভাষায় হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটে সে জানায়। তরুণী কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় আকাশ ধমক দিয়ে ভয় দেখিয়ে বলে,“ক্ষমতা থাকলে টালিগঞ্জের ইন্ডাস্ট্রিতে পা দিয়ে দেখাও। এই ইন্ট্রাস্ট্রির সভাপতি স্বরূপ বিশ্বাস আমার বাবা।”