প্রতিবছরই পুজোয় পাল্টে যায় শহরের মেট্রো  চলাচলের সময় সীমা। নির্ধারিত সময়ের বাইরে গিয়েই দেওয়া হয় অতিরিক্ত মেট্রো। পাশাপাশি বাড়িয়ে তোলা হয় সময় সীমাও। কিন্তু চলতি বছরে করোনার কোপে ঠিক এর উল্টো ছবিটাই সামনে উঠে এল। সোমবার হাইকোর্টের নির্দেশ মেলা মাত্রই তড়িঘড়ি বৈঠক হয় মেট্রো চলাচল নিয়ে। আর সেখান থেকেই এবার সামনে উঠে এলো একাধিক তথ্য। যেখানে চোখে পড়ল না অন্যবারের মত ব্যস্ততা। বরং ভিড় কমাতেই একাধিক নয়া সিদ্ধান্ত। 


সাধারণ এখন প্রতিদিন সকাল আটটা থেকে খুদে দেওয়া মেট্রোর দরজা। কিন্তু পুজোয় অর্থাৎ সপ্তমী থেকে দশমী পর্যন্ত মেট্রো মিলবে সকাল ১০ থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত। কেবল মাত্র জরুরী ব্যবস্থার জন্যই খোলা হচ্ছে মেট্রো। যদিও প্রাথমিকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। স্থির হয়েছিল পরিষেবা বাড়ানোর জন্য়। কিন্তু হাইকোর্টের রায়কে সন্মান জানিয়ে এবার মেট্রোও পায়ে পরালো বেরি। 

মেট্রো রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায়-এর কথায় তাঁরা শুধ মাত্র জরুরী পরিষেবাই দিতে চাইছেন। পুজোয় কোনও ভাবে ভিড়কে সমর্থন করছেন না। তাই কমানো হচ্ছে মেট্রোর সংখ্যা। মাত্র ৬৪ টি মেট্রো চলবে। বর্তমানে যেখানে চলছে ১২৫টি মেট্রো। প্রথমে তাঁরা সময় বাড়ানোর কথাও ভেবেছিলেন, স্থির করেছিলেন ইপাস তৈরির জন্যও। কিন্তু তেমনটা ঘটছে না এবার। ফলে পথে বেরোলে এক প্রকার নাজেহালই হতে হবে কলকাতাবাসীকে। নয়তো বাসে উপচে পড়া ভিড়। যা ভয়াবহ ছবি তুলে ধরতে পারে কয়েকদিনের মধ্যেই। তাই সতর্কতা মেনেই এবার উৎসবে মাতা হোক সকলের শপথ।