টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে মানুষের মুখ বন্ধ করা যাবে না। সম্প্রীতির বার্তা দিতে যাওয়ায় অ্যাকাউন্ট বন্ধ হল। ৫ অক্টোবরের একটা টুইটকে নিয়ে রাজনীতিকরণ করেছে বিজেপির আইটি সেল। অ্যাকাউন্ট সাসপেন্ড নিয়ে এমনই মন্তব্য করলেন সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম। 

আরও পড়ুন : বিজেপিকে বর্বর বলায় বন্ধ মহম্মদ সেলিমের ট্য়ুইটার অ্যাকাউন্ট...

সিপিএমের এই পলিটব্যুরো নেতা বলেন, রাজ্যে পুজোর সময় একটা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির পরিবেশ বজায় রাখতে টুইটারে বার্তা দিয়েছিলাম। মূলত, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রয়াত কমরেড নেতা জ্যোতি বসুকে উদ্ধৃত করে কটা লাইন লিখেছিলাম। রাজ্যে মনে হয়েছে ক্রমাগত হিংসার উস্কানি চলছে। সেই পরিস্থিতিতে সবাইকে সংযত থাকতে এই বার্তা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তা নিয়ে রাজনীতি করা হচ্ছে। আমার এই টুইট ঘিরে নাকি দাঙ্গা হাঙ্গামা ছড়াবে?

এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি সিপিএমের এই ডাকসাইটে নেতা। তাঁর মতে, রাজ্যে গেরুয়া ব্রিগেড সরাসরি সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের পথে হাঁটছে। সে কারণে জিয়াগঞ্জের শিক্ষক খুনেও আরএসএস যোগ বের করা হয়েছে। যেহেতু মুর্শিদাবাদ মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চল, সেকারণে এখানে হিন্দু, মুসলিম করতে চাইছে গেরুয়া বাহিনী। এছাড়াও নিত্যদিন সোশ্য়াল মিডিয়ায় চলছে উস্কানিমূলক প্রচার। সব জেনেও রাজ্য সরকার কার্নিভাল নিয়ে ব্যস্ত।

আরও পড়ুন : নুসরতের পাশে জাভেদ আখতার, পাল্টা প্রশ্ন গণপিটুনি নিয়ে...

 রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর উক্তি বর্ণনা করাই কাল হল সেলিমের। ট্যুইটার থেকে বন্ধ করে দেওয়া হল সিপিএম নেতার এই অ্যাকাউন্ট। সম্প্রতি টুইটারে জ্যোতি বসুর পুরোনো উদ্ধৃতি আওড়ান রায়গঞ্জের প্রাক্তন সাংসদ। তিনি লেখেন,কমরেড জ্যোতি বসু বিজেপিকে বর্বর, অসভ্য দল বলেছিল। তাই বিজেপির বর্বরতা থেকে বাংলাকে বাঁচাতে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে রাজ্যবাসীকে। আমরা বিবেকানন্দ ,রামকৃষ্ণ পড়েছি। তাঁরা নিজেদের ধর্মকে ভালোবাসব বলে অন্যের ধর্মকে ধ্বংস করতে শেখাননি। ইতিমধ্যেই কেন তাঁর অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে তারও সাফাই দিয়েছে টুইটার। যেখানে বলা হয়েছে,সোশ্যাল মিডিয়ায় নিয়ম ভঙ্গ করার জন্যই সেলিমের ট্য়ুইটার অ্যাকাউন্ট ব্লক করা হয়েছে।  

আরও পড়ুন : স্বামীকে পাশে নিয়ে সিঁদুর খেললেন নুসরত, দেখুন সেই ভিডিও...