রেলের প্রতারণা মামলায় হাজিরা দিয়ে মুখ্য়মন্ত্রীকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন মুকুল রায়। বিজেপি নেতার অভিযোগ,রাজ্যে অনৈতিক কাজের গুরুঠাকুর হচ্ছেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। সেই জায়গায় তিনি তো তুচ্ছ।

সোমবার ঠাকুরপুকুর থানায় হাজিরা দিয়ে মুকুল বলেন, একটা তদন্ত হচ্ছে, আমাকে ডেকেছে আমি এসেছি । আমার বিরুদ্ধে অনৈতিক কাজের অভিযোগ আনা হয়েছে। অনৈতিক কাজের গুরুঠাকুর তো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ডেলোতে গিয়ে সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে মিটিং করেছে। আর এখানে এসে বলল আমি কিছুই জানি না,আমার সাথে কোনও যোগাযোগ নেই।

সম্প্রতি রেল বোর্ডে সদস্যপদ পাইয়ে দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগ ওঠে বিজেপি নেতা বাবান ঘোষের বিরুদ্ধে। ঠাকুরপুকুর থানায় এ নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন সন্তু ঘোষ নামের এক ব্য়বসায়ী।  অভিযোগ, মুকুল রায়ের নাম করে ওই বিজেপি  নেতা তাঁর থেকে ৮০ লক্ষ টাকা নেন। পরে রেল বের্ডোর স্থায়ী সদস্য়পদ না পেলে চার বিজেপি নেতার নামে এফআইআর দায়ের করেন ওই ব্য়বসায়ী। এফআইআর-এ দেওয়া হয় বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের নাম। বর্তমানে সেই প্রতারণা মামলায় হাজিরা দিচ্ছেন মুকুল রায়।

সম্প্রতি পাঁশকুড়ায় তৃণমূল নেতা কুরবান হত্যাকাণ্ডে বিজেপি নেতা আনিসুরের নাম উঠেছে। অভিযোগ,গা বাচাতে মুকুল রায়ের বাড়িতে গিয়েছিলেন আনিসুর। এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মুকুল রায় বলেন, আনিসুর আমার বাড়িতে এসেছে কি আসেনি সেটা সিসিটিভি দেখে বলতে হবে। আনিসুর যেমন আমার ঘনিষ্ঠ ছিল কুরবানও আমার ঘনিষ্ঠ। শুভেন্দুও আমার ঘনিষ্ঠ ছিল। পশ্চিমবাংলায় তৃণমূলের সমস্ত কর্মী সবাই আমার ঘনিষ্ঠ।

এদিকে বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট পদে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় নির্বাচিত হওয়ায় ফের সৌরভের বিজেপি যোগের জল্পনা শুরু হয়েছে। ২০২১ সালে সৌরভ বিজেপির বাজি হতে পারেন বলে মন্তব্য় করেছেন অনেকেই। যদিও সেই কথার খোলসা করেননি মুকুল রায়। সৌরভের বিষয়ে তিনি বলেন, ক্রিকেটার হিসেবে সৌরভ একজন মহান ক্রিকেটার। অ্যাডমিনিস্ট্রেটর হিসাবেও অনেক বড়। বাংলার গর্ব সৌরভ। আজকে ও যে জায়গায় পৌঁছেছে তার জন্য আমি ব্যক্তিগতভাবে খুব খুশি। আমাদের দলের তরফ থেকেও সৌরভকে অনেক অনেক অভিনন্দন।