জোর চমক ভাইফোঁটার দিন। দূরত্ব ভুলে বান্ধবী বৈশাখীকে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ি গেলেন বিজেপি নেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়। শোনা যাচ্ছে একদা মমতা ঘনিষ্ঠ শোভন প্রিয় দিদির থেকে ফোঁটাও নেন।
এদিকে সাসসকালে সল্টলেকে বিজেপি রাজ্যসভাপতি দিলীপ ঘোষের বাড়ি গিয়ে ফোঁটা দিলেন হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়। উপহার হিসাবে খড়গপুরের বিজেপি সাংসদকে জহর কোর্টো দেন লকেট।  এদিন বিজেপির রাজ্য দফতরেও উদযাপিত হয় ভাইফোঁটা। সেখানও দলের মহিলা মোর্চার সদস্যদের থেকে ফোঁটা নেন দিলীপ ঘোষ, জয়প্রকাশ মজুমদাররা।

রাহুল সিনহা অবশ্য নিজের বাড়িতে বোনেদের থেকে নিলেন ভাইফোঁটা।  বোনেদের শাড়িও উপহার দেন তিনি। 

 

 

 ভাইফোঁটার দিন অন্য মেজাজে পাওয়া গেল  মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়কে। সপ্তাহের আর পাঁচটা দিন তিনি ব্যস্ত রাজনীতিক। সামলাতে হয় গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব। ঠিকমত সময় দিতে পারেন না পরিবারকে। তবে ভাইফোঁটার দিন সব কাজ বাদ দিয়ে প্রথমেই বোনেদের থেকে ফোঁটা নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রিসভার অন্যতম মুখ। বছরের এই দিনটা নিজের প্রিয় পদগুলি দিয়ে ভুরিভোজও করলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়। 

 

নগরোন্ননমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের বাড়িতেও আয়োজন করা হয়েছিল ভাইফোঁটার। সঙ্গে চলল দেদার খাওয়া দাওয়া।

টলি পাড়ায় বরাবরই জনপ্রিয় রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস। এবছর ভাইফোঁটার দিনও টালিগঞ্জে আয়োজন করা হয়েছিল বিশেষ উৎসবের। যেখানে মন্ত্রীকে ফোঁটা দিতে হাজির হয়েছিলেন একঝাঁক টলি তারকা। দাদা অরূপকে ফোঁটা দিতে এসেছিলেন  সাংসদ নুসরত জাহান। ছিলেন প্রিয়ঙ্কা সরকার ও জুন মালিয়াও। প্রতিবছর অরূপ বিশ্বাসকে ফোঁটা দেন মিমি। ভাইফোঁটা উপলক্ষ্যে সকলকে শুভেচ্ছাও জানান তিনি।