কাজের সুবাদে আমেরিকায় থাকেন। মার্কিন মুলুকের নাগরিকত্বও নিয়েছেন। কিন্তু, নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের শিকড় তো কলকাতাতেই! মঙ্গলবার রাতে শহরে পা দেওয়ার পর থেকে শুভেচ্ছায় ভাসছেন তিনি। বুধবার সকালে প্রেসিডেন্সির এই কৃতী ছাত্রকে শুভেচ্ছা জানাতে তাঁর বালিগঞ্জের বাড়িতে যান প্রেসিডেন্সি প্রাক্তনী সংসদের সদস্যরা। জানুয়ারি মাসে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়কে সংবর্ধনা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তাঁরা।  প্রাক্তন সংসদের তরফে জানানো হয়েছে, সেই প্রস্তাব সম্মতি দিয়েছেন নোবেলজয়ী। নতুন বছরের প্রথম মাসেই ফের কলকাতায় আসবেন তিনি। কবে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হবে, তা এখনও চুড়ান্ত হয়নি। এদিন সকালে সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেনের বাড়িতেও যান অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়।   

বাবা তৎকালীন প্রেসিডেন্সি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের প্রবাদপ্রতিম শিক্ষক, মা-ও অর্থনীতির অধ্যাপিকা ও গবেষক। তাঁদের সন্তান যে অর্থনীতি নিয়েই পড়াশোনা করবেন, তাতে আর আশ্চর্যের কী আছে! তবে শুধু  পড়াশোনা কিংবা গবেষণা করাই তো নয়, প্রেসিডেন্সি কলেজের অর্থনীতির অধ্যাপক দীপক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছেলে অভিজিৎ নোবেল পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন।  মঙ্গলবার রাতে মাত্র কয়েক ঘণ্টার জন্য  নিজের শহরে এসেছেন। কিন্তু, তাতে কী! সকলেই যে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে চান, শুভেচ্ছা জানাতে চান।   সময়ের অভাবে অভিজিৎ-এর পক্ষে সকলের অনুরোধ রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তবে বুধবার সকালে যখন তাঁকে  শুভেচ্ছা জানাতে বালিগঞ্জের বাড়িতে হাজির হন প্রেসিডেন্সি কলেজের প্রাক্তনী সংসদের সদস্যরা, তখন  তাঁদের আর ফেরাতে পারেননি অভিজিৎ।  একসময় তিনি নিজেও এই কলেজেরই অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র ছিলেন। বালিগঞ্জের বাড়িতেও নোবেলজয়ীর সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ কথা হয় প্রাক্তনী সংসদের সদস্যদের।

প্রতি বছর কলেজের কৃতী ছাত্রদের সংবর্ধনা দেয় প্রেসিডেন্সি কলেজের প্রাক্তনী সংসদের সদস্যরা। স্বাভাবিক কারণেই এবছর তাঁরা সংবর্ধনা দিতে চান নোবেলজয়ী অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়কে।  জানা গিয়েছে, নিজের কলেজের প্রাক্তনী সংসদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দিতে রাজি হয়েছেন নোবেলজয়ী।  প্রাক্তন সংসদের তরফে জানানো হয়েছে, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অভিজিৎ-এর সময়কার অধ্যাপক-অধ্যাপিকাদের মধ্যে যাঁরা এখনও জীবিত, তাঁদের সকলেই আমন্ত্রণ জানানো হবে। উপস্থিত থাকবেন নোবেলজয়ীর সহপাঠীরাও।  অভিজিৎ-এর ছাত্রাবস্থায় তৎকালীন প্রেসিডেন্সি কলেজ যেমন ছিল, ঠিক তেমনই একটি আবহে হবে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান।  

এদিকে অভিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে চেয়ে চিঠি পাঠিয়েছিলেন প্রেসিডেন্সি কলেজের আর এক প্রাক্তনী তথা সাহিত্যিক নবনীতা দেবসেন। দীর্ঘদিন ধরে শারীরিকভাবে তিনি অসুস্থ, গৃহবন্দী।  চিঠিতে সাহিত্যিক লিখেছিলেন, শারীরিক অসুস্থতার কারণে তাঁর পক্ষে বাড়ির বাইরে গিয়ে অভিজিৎ-এর সঙ্গে দেখা করা সম্ভব নয়।  কলকাতা এলে নোবেলজয়ী যেন একবার বাড়িতে এসে তাঁর সঙ্গে দেখা করে যান।  সেই আমন্ত্রণ রক্ষা করতে বুধবার সকালে নবনীতা দেবসেনের বাড়িতে যান অভিজিৎ। দীর্ঘক্ষণ দু'জবনের কথা হয়। নবনীতা-কে নিজের হাতে কবিতা লিখে উপহার দেন অভিজিৎ।