প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। কলকাতায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সভা যদি কেউ সামনাসামনি বাধা দেয়, তাহলে তা ভেঙে চুরমার করে দেওয়া হবে। হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপি-এর কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। শনিবার শহিদ মিনার চত্বরে সভাস্থল পরিদর্শন করেন তিনি।

শিয়রে পুরভোট। আগামীকাল অর্থাৎ রবিবার সিএএ সমর্থনে প্রচার করতে কলকাতা আসছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ও বিজেপি সেকেন্ড-ইন-কমান্ড অমিত শাহ। সকাল ১১ টায় দমদম বিমানবন্দরে নেমে এনএসজির অনুষ্ঠানে যাবেন তিনি। সেখান থেকে দুপুর আড়াইটায় আসবেন শহিদ মিনার ময়দানে। ভাষণ তো দেবেনই,সভামঞ্চ থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিজেপি প্রচার কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনও করবেন অমিত শাহ। সভা শেষে বিকেল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পুজো দেবেন কালীঘাটে। এরপর রাজারহাটে একটি হোটেলে বিজেপি-এর সাংসদ, বিধায়ক ও পদাধিকারীদের সঙ্গে বৈঠক, রাতের বিমানের দিল্লি উড়িয়ে যাবেন অমিত শাহ। 

আরও পড়ুন: পুজোর আগেই চালু নয়া মাঝেরহাট সেতু, ফের কাজ শুরুর অনুমতি দিল সিআরএস

আরও পড়ুন: পিছু ছাড়ছে না আতঙ্ক, বউবাজার বিপর্যয় ঠেকাতে আগাম ব্য়বস্থা মেট্রোর

পরিকল্পনা তো চূড়ান্ত। কিন্তু, কলকাতায় অমিত শাহের কর্মসূচি নির্বিঘ্নেই মিটবে তো? আশঙ্কা কিন্তু থেকেই যাচ্ছে। কারণ, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সভা বিরুদ্ধে পথে নামতে চলেছে বামেরা। সিপিএমের পলিটব্যুরো সদস্য মহম্মদ সেলিম সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, দেড়মাস প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফরের সময়ে যেভাবে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছিল, এবারও সেই পন্থাই অবলম্বন করা হবে। শনিবার শহিদ মিনার চত্বরে অমিত শাহের সভার প্রস্তুতি খতিয়ে দেখতে আসেন বিজেপি-র কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা। তাঁর পাল্টা হুঁশিয়ারি, 'বামেরা এখন লাইম লাইটে আসতে চায়। ওদের সঙ্গে মানুষ নেই, কর্মী নেই। বামেদের নাটক নিয়ে তাই আমরা চিন্তিত নই। বাধা যদি দেয় সামনাসামনি, কী করে তা ভেঙে চুরমার করে দিতে হয়, আমরা জানি। সেটাই করা হবে।'  সূত্রের খবর, বিমানবন্দর থেকে যে পথে শহিদ মিনারে আসবেন অমিত শাহ, সেই পথে কোনওরকম বিশঙ্খলা বা প্রতিবাদ কর্মসূচি ঠেকানোর জন্য স্থানীয় বিজেপি কর্মী ও দলে কার্যালয়গুলিকে সতর্ক থাকার নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।