অমিত শাহের উপস্থিতিতেই নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে বিজেপি-তে যোগ দিলেন তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্ত। বিধাননগরের প্রাক্তন মেয়রকে নিজে উত্তরীয় পরিয়ে দিলেন বিজেপি সভাপতি। আর নতুন দলে যোগ দিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সামনেই বাংলাকে পাকিস্তানের সঙ্গে তুলনা করে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানালেন সব্যসাচী। 

বিজেপি-তে যোগ দিয়েই এ দিন নাম না করে নিজের পুরনো দলকে বিঁধেছেন সব্যসাচী। তুলে এনেছেন মুকুল রায়ের তাঁর বাড়িতে গিয়ে লুচি আলুর দম খাওয়ার প্রসঙ্গও। সব্যসাচী বলেন, 'আমার বাড়ি গিয়ে মুকুলদা আতিথেয়তা নিয়েছিলেন। লুচি আলুর দম খেয়েছিলেন বলে অনেক কথা হয়েছিল। সকালবেলা গিয়ে বলেন চা খাব। দিলীপদাকে নিয়ে গর্বিত হই। যাঁরা এই আতিথেয়তাকে ভয় পান, তাঁরা মানুষের পর্যায়ে পড়েন না। তাঁরা অন্য কোনও গ্রহ থেকে এসেছেন।'

আরও পড়ুন- অলৌকিক হাতে' আটকে মমতা, কটাক্ষ সব্যসাচীর, দেখুন ভিডিও

এর পরেই অমিত শাহের সামনে বাংলাকে 'ঠান্ডা' করার জন্য অনুরোধ করেন সব্যসাচী। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তাঁকে বলতে শোনা যায়, 'কাশ্মীরকে ঠান্ডা করে দিয়েছেন। সেখানে মানুষ শান্তিতে রয়েছেন। আপনাকে বিনীত অনুরোধ বাংলাকেও ঠান্ডা করে দিন।' 

এনআরসি প্রসঙ্গ তুলে সব্যসাচী বলেন. 'আমরা আব্দুল কালামকে সম্মান করি, কিন্তু আজমল কাসভকে সন্ত্রাসবাদী বলি। যাঁরা ভারতকে খণ্ড, বিখণ্ড করছে, অন্য দেশ থেকে যাঁরা দেশকে ভাঙতে চাইছেন, তাঁদের চেনা যায়। কিন্তু যাঁরা পাশ থেকে ছুরি মারছেন, তাঁদেরকেও একটু সবাই চিনে বের করে রাখুন। কালো চাল, মরা চালটাকে সরিয়ে রাখুন, দেখবেন পশ্চিমবঙ্গের অনেক উন্নতি হবে।' একধাপ এগিয়ে বিধাননগরের প্রাক্তন মেয়র অমিত শাহকে বলেন, 'বাংলা ধীরে ধীরে পাকিস্তানের একটা অংশ হয়ে যাচ্ছে। এর থেকে বাংলা, বাঙালিকে বাঁচান।' সব্যসাচীর এই বক্তব্য শুনে অমিত শাহকেও হাততালি দিতে দেখা যায়। 

এ দিন সব্যসাচীর সঙ্গেই বিধাননগর পুরসভার আরও দুই তৃণমূল কাউন্সিলরও বিজেপি-তে যোগ দেন। সব্যসাচীর হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।