চলে গেলেন বাংলা কল্পবিজ্ঞানের শ্রেষ্ঠ স্রষ্টা অদ্রীশ বর্ধন। মৃত্যুকালে তার বয়েস হয়েছিল ৯৬ বছর।  দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত অসুখে ভুগছিলেন তিনি।  

অদ্রীশ বর্ধনের জন্ম কলকাতায় এক শিক্ষক-পরিবারে। অ্যাডভেঞ্চারের টানে জীবনে অনেক পেশার সাথে যুক্ত ছিলেন। চাকরি, ব্যবসা ও সাহিত্যসাধনা সবই চলেছে পাশাপাশি। পরে নামী একটি প্রতিষ্ঠানের পারচেজ ম্যানেজার-পদে ইস্তাফা দিয়ে পুরোপুরি চলে আসেন লেখার জগতে। গোয়েন্দা কাহিনী দিয়ে লেখালেখির শুরু করেন। তার সৃষ্ট গোয়েন্দা ইন্দ্রনাথ রুদ্র ও মেয়ে গোয়েন্দা নারায়নী। বাংলায় বিজ্ঞান, কল্পবিজ্ঞান, অতীন্দ্ৰিয় জগৎ অতিপ্রাকৃত, অনুবাদ ইত্যাদি লেখার ক্ষেত্রে অদ্রীশ বর্ধন ছাপিয়ে গিয়েছেন নিজের সময়কে।

 ভারতের প্রথম কল্পবিজ্ঞান-পত্রিকা আশ্চর্য-র ছদ্মনামী সম্পাদক। এখন সম্পাদনা করেন "ফ্যানটাসটিক। সত্যজিৎ রায়ের সভাপতিত্বে প্রথম "সায়ান্স ফিকশন সিনে ক্লাব”-এর প্রতিষ্ঠাতা-সম্পাদক। । স্বল্পায়ু আশ্চর্য পত্রিকা বন্ধ হওয়ার পরে অদ্রীশ বর্ধন শুরু করেন  ‘ফ্যানট্যাস্টিক’,সহ-সম্পাদক রণেন ঘোষ। পত্রিকা, রেডিও, ফিল্ম ক্লাবের মাধ্যমে কল্পবিজ্ঞানকে আন্দোলন-আকারে সংগঠিত করেন ।

কিছুদিন আগেই গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কী নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হলে চিকিৎসায় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।