মধ্য়রাতে বাড়িতে বাইরের ছেলেদের আনাগোনা। একাধিক মহিলারা ভিড় জমাতে বাড়িতে।  প্রথম থেকেই বাড়ির মালকিনের গতিবিধি সন্দেহজনক লেগেছিল এলাকাবাসীদের। যদিও লকডাউন ঘোষণা হওয়ায় হাতেনাতে ধরা যাইনি কাউকে। শেষে 'মৌচাকে ঢিল' মারতেই বেরিয়ে পড়ল মধুচক্র।   

ঘটনাটি ঘটেছে, উত্তর চব্বিশ পরগনার ব্যারাকপুরের পানিহাটি পৌরসভার ২৪ নং ওয়ার্ডে। আগরপাড়া-শক্তিপুর অটোস্ট্যান্ড লাগোয়া একটি বাড়িতে এই মধুচক্রের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বেশ কয়েক বছর ধরেই চলছিল এই মধুচক্রের আসর। রাত দুপুরে প্রচুর বহিরাগত ছেলে মেয়ে আসত এই বাড়িতে। করোনা রোগের প্রাদূর্ভাব ঘটায় কয়েক মাস ধরে সেই বহিরাগত ছেলে মেয়েদের আনাগোনা বন্ধ ছিল। 

কিন্তু লকডাউন উঠতেই ফের বাইরের থেকে অজানা অচেনা ছেলে মেয়ে রা এসে ঢুকছে এই বাড়িতে। এলাকার লোকেরা বেশ কিছুদিন ধরে মধুচক্রের সন্দেহ করছিল। শুক্রবার রাতে হাতেনাতে ধরে ফেলে ছেলেমেয়েদের। খবর দেওয়া হয় খড়দহ পুলিশকে। এরপর খড়দহ থানার পুলিশ এসে বাড়ি থেকে সমস্ত মহিলা এবং পুরুষকে থানায় নিয়ে যায়। 

এলাকার বাসিন্দাদের দাবি,বাড়ির মালকিন প্রতিমা দত্ত নিজে দায়িত্ব নিয়ে এই চক্র চালাত। পাড়ার মধ্যে সুস্থ সামাজিক পরিবেশ নষ্ট করে রমরমিয়ে ব্যবসা ফেঁদে বসেছিল সে। শুক্রবার রাতেই বাড়ির মালকিন প্রতিমা দত্ত সহ মোট ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে খড়দহ থানার পুলিশ। এঁদের মধ্যে ৫ জন বাইরের মহিলা রয়েছেন।  আজ তাদের ব্যারাকপুর মহকুমা আদালতে তোলা হবে।