তিনি একা নন,সুজিত বসুর সঙ্গে করোনায় আক্রান্ত তার স্ত্রী ও দুই পরিচারক। মন্ত্রী নিজে স্থিতিশীল বলেই জানা গিয়েছে। মন্ত্রী জানিয়েছেন, চিকিত্‍সকের পরামর্শে হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। চিকিত্‍সক ওষুধ দিয়েছে সেগুলোই খাচ্ছেন তিনি।

রাজ্য়ে লকডাউন শুরু হওয়ার পর বহু জায়গায় ত্রাণ বিলোতে দেখা গিয়েছে রাজ্য়ের দমকল মন্ত্রীকে। তিনি জানিয়েছেন, মানুষের মাঝে কাজ করতে ভালোবাসেন তিনি। তাই বহু লোকের সঙ্গে দেখা করতে হয় প্রতিদিন। সেকারণে ৩০ জনকে পরীক্ষা করানো হবে। ১৫ জনের পরীক্ষা হয়ে গিয়েছে। কালকের মধ্য়ে পরীক্ষা করানো হবে। 

সম্প্রতি পরিচারিকার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসার পর মন্ত্রীর পরিবারের সদস্যদের করোনা পরীক্ষা করা হয়। আর তাতেই তাঁর শরীরে এই সংক্রমণ পাওয়া গিয়েছে। শুধু তাই নয়, দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু, তাঁর স্ত্রী এবং বাড়ির আরও পরিচারকের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তবে স্বস্তির খবর মন্ত্রীর দুই সন্তানের করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

চলতি সপ্তাহের শুরুতেই সুজিত বাবুর আগে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন ফলতার তৃণমূল বিধায়ক তমোনাশ ঘোষ।  এদিকে আবার দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিসেও ভুগছিলেন তিনি।  তবে চিকিৎসার পর বর্তমানে তা নিয়ন্ত্রণে এসেছে। স্বাস্থ্য ভবনের এক কর্তা জানিয়েছেন, গত দু-তিন দিনে সুজিতবাবুর সংস্পর্শে যাঁরা এসেছেন, তাঁদের কারও শরীরে উপসর্গ দেখা দিলে তাঁরও কোভিড টেস্ট করা হবে।