একের পর এক বিজেপি কর্মীর খুন হচ্ছে। এবার এই ঘটনা নিয়েই সরব হলেন বিজেপি মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল এবং রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সম্প্রতি খুন হয়েছেন বিজেপির বুথ সভাপতি মদন ঘড়াই। ঘটনার দিন তাঁর বাড়ি থেকে পুলিশ তুলে নিয়ে যায় তাঁকে থানায়। তার কিছুক্ষণ পরেই তাঁর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। এর পরেই এই নিয়ে ঝড় ওঠে রাজনৈতিক মহলে।


তাঁর মৃত্যু নিয়ে অভিযোগ তুলেছেন সায়ন্তন বসু। তিনি জানিয়েছেন, এই রকম দুটি র্ঘটনা ঘটেছে। একটি মেদিনীপুরের পটাশপুরে এবং অন্যটি  উত্তর দিনাজপুর ইটাহারে। তিনি এও জানান, মৃতদেহ পোস্টমর্টেম করা হলেও বাড়ির লোক এখনও তাঁর মৃতদেহ পাননি। পরে তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে কলকাতা হাইকোর্টে অভিযোগ জানানো হয়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কলকাতা হাইকোর্ট মৃতদেহ পুনরায় ময়না তদন্তের নির্দেশও দেয়। কিন্তু এখনো পর্যন্ত মৃতদেহ পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হয়নি এবং মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলেও দেওয়া হয়নি। মদন ঘড়াইয়ের মৃতদেহ এখনও কলকাতা আরজিকর হাসপাতালেই রয়েছে। কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশ এবং পুলিশের এইরকম নিষ্ক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সায়ন্তন বসু। অন্যদিকে অগ্নিমিত্রা পাল -এর গলায়ও শোনা গেল একই সুর। তিনি জানিয়েছেন, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মীদের তাদের বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এবং তারপর তাদের মৃতদেহ উদ্ধার হচ্ছে। সায়ন্তন বসু দাবি করেছেন, এই ঘটনার দ্রুত নিষ্পত্তি করতে হবে। আর তা না হলে আগামী দিনে তারা বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন।

https://bangla.asianetnews.com/cooch-behar/bjp-supporter-shot-death-in-sitai-at-cooch-behar-btg-qiuw8o

বুধবার দিন ওই বিক্ষোভে সামীল হন বিজেপির বুথ সভাপতি মদন ঘড়াইয়ের স্ত্রীও। তিনি জানিয়েছেন এই ঘটনায় যারা দোষী তাদের উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হোক। অন্যদিকে অগ্নিমিত্রা পাল জানিয়েছেন কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে পুনরায় তদন্ত করা হচ্ছে না। অবিলম্বে তা করা হোক বলে তিনি দাবি জানিয়েছেন।