চাকুরিপ্রার্থীদের সুখবর শোনালেন মুখ্যমন্ত্রী। বুধবার বিধানসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দিলেন ৩৩৬৮৭টি শূন্যপদে নিয়োগ হবে এই রাজ্যে। চাকুরিপ্রার্থীরা আবেদন জানাতে পারবেন শীঘ্রই। জানা গিয়েছে, এই আসনের মধ্যে ১৫১৬০টি আসন সংরক্ষিত রয়েছে তফশিলি ও অনগ্রসর শ্রেণিভুক্তরা। সূত্রের খবর, স্টাফ সিলেকশান কমিশনের মাধ্যমে এই পরীক্ষা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুনঃ বাজেট দিশাহীন, নীরবতা ভেঙে বললেন মমতা
মমতা আমাদের সদস্য নন, মিম বিতর্কে মুখ খুললেন দিলীপ ঘোষ

প্রসঙ্গত শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে বারবার মুখ পুড়েছে এই রাজ্যের। ভোটের মুখে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয় এসএসসির নিয়োগ শুরু হবে। সেই নিয়োগ নিয়েও অনলাইন প্রক্রিয়াকরণের কথা ঘোষণা হয়েছে ভোট মিটতে। গত লোকসভা ভোটে রাজ্যে অভাবনীয় শ্রীবৃদ্ধি হয়েছে বিজেপির। ১৮টি আসনে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে তারা। ভোটের আগে থেকেই প্রচারের অস্ত্র হিসেবে বিজেপি ব্যবহার করেছিল রাজ্যে কর্মসংস্থানের ভাঁটার কথা। লোকসভা ভোটের পরে সেই ক্ষতই মেরামত করাটাই এখন রাজ্য প্রশাসনের জন্যে চ্যালেঞ্জ। উল্লেখ্য শুধু চাকরিই নয়, এদিন বিধানসভা থেকে অন্য ঘোষণাও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে শক্তিশালী করতে এগিয়ে আসছে রাজ্য। এদিন মুখ্যমন্ত্রী প্রতিটি স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে ৫ হাজার টাকা ভর্তুকি দানের কথাও ঘোষণা করেন। তাছাড়া এই গোষ্ঠীগুলিকে ৩০ শতাংশ ভর্তুকিও দেবে সরকার।  

বলা বাহুল্য এই মুহূর্তে কর্মসংস্থান নিয়ে খুব সুবিধেজনক অবস্থায় নেই কেন্দ্র। বেকারত্বের হার গত ৪৫ বছরের সমস্ত রেকর্ডকে পিছনে ফেলে দিয়েছে। কঠিন সময়ে নৌকোর হাল ধরেছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। কঠিন দায়িত্ব তাঁর কাধে। জাতীয় স্তরের এই ব্যর্থতাকেই আগামী বিধানসভা ভোটে হাতিয়ার করবে তৃণমূল এ কথা নিশ্চিত ভাবেই বলা যায়.