শহর জুড়ে দুপুর হতেই ঝড় বৃষ্টির তাণ্ডব। শহর কলকাতার পাশাপাশি প্রবল বেগে ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হয় ক্ষিণ ২৪ পরগনা, উত্তর ২৪ পরগনা, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমান, মালদহ ও দুই দিনাজপুরে। পশ্চিম রাজস্থান থেকে আসাম পর্যন্ত একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা অবস্থান করায় এই ঝড় বৃষ্টির দাপট। কলকাতা আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী আগামী ২৪ ঘণ্টা থাকতে এই পরিস্থিতি।

আরও পড়ুন- অ্যাম্বুলেন্সের বদলে অটোতেই করোনা যুদ্ধ, কিছুতে হার মানতে রাজি নয় রেড ভলান্টিয়ার্সের সদস্য রানা 

এর ফলে শহরসহ গোটা বাংলার তাপমাত্রা এক ধাক্কায় বেশ কিছুটা কমল। সঙ্গলবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৩.৬ দশমিক ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৭.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। উত্তর প্রদেশ বিহার এবং হিমালয় সংলগ্ন পশ্চিমবঙ্গের উপর দিয়ে পশ্চিম থেকে পূর্ব দিকে গেছে এই নিম্মচাপ রেখা। পাশাপাশি পশ্চিমের হাওয়ার প্রভাবে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রচুর পরিমাণে জলীয় বাষ্প ঢুকছে রাজ্যে।

এই কারণে দক্ষিণ বঙ্গের উপকূল এর জেলা ও পশ্চিমবঙ্গের বাংলাদেশ লাগোয়া জেলাগুলো ঝড় বৃষ্টি হবে আগামী ৪৮ ঘণ্টা পর্যান্ত।  শুধুমাত্র পশ্চিমে জেলাগুলোতে বৃষ্টি হবে না সেভাবে। এই ঝড়-বৃষ্টির দাপট আগামী ৪৮ঘন্টা বাজায় থাকবে,১৩ তারিখ কমবে বৃষ্টির প্রভাব, ১৪ তারিখ থেকে আকাশ পরিষ্কার হয়ে যাবে। যার ফলে আগামী ৪৮ ঘণ্টা মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। মঙ্গলবার বজ্রপাতের জেরে মুর্শিদাবাদে প্রাণ হারালেন ১।