একটি দু'টি নয়, একদিনে তিরিশজন গ্রাহক এটিএম জালিয়াতির শিকার। আর প্রতিটি ঘটনাই ঘটেছে যাদবপুরের কোনও না কোনও এটিএম-এ। শুধুমাত্র রবিবারই যাদবপুর থানায় জমা পড়েছে চোদ্দটি এটিএম প্রতারণার অভিযোগ। এ দিন সকাল থেকেও প্রতারণার অভিযোগ নিয়ে থানায় এসেছেন আরও কয়েকজন গ্রাহক। 

যাদবপুর থানা সূত্রে খবর, রবিবার মোট তিরিশজন এটিএম প্রতারণার অভিযোগ দায়ের হয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রেই গ্রাহকদের অজান্তে তাঁদের এটিএম কার্ডের তথ্য হাতিয়ে দশ থেকে তিরিশ হাজার টাকা পর্যন্ত তুলে নেওয়া হয়েছে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দিল্লির এটিএম থেকে তোলা হয়েছে টাকা। অথচ প্রতারিতদের এটিএম কার্ড তাঁদের কাছেই রয়েছে। 

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্ক ছাড়াও বেসরকারি ব্যাঙ্কের গ্রাহকরাও এই প্রতারণার শিকার হয়েছেন। পর পর অভিযোগ আসতেই যাদবপুর থানা এলাকার সব এটিএম পরীক্ষা করে দেখে পুলিশ। কিন্তু কোনও জায়গাতেই এটিএম-এ সন্দেহভাজন কোনও যন্ত্র বা ডিভাইস পায়নি পুলিশ। 

গোটা ঘটনায় যাদবপুর এলাকায় সাধারণ মানুষের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। এটিএম ব্যবহার করতেই ভয় পাচ্ছেন অনেকে। এটিএম প্রতারণার ঘটনা এড়াতে ব্যাঙ্কের তরফেও বাড়তি নজরদারি চালানো হচ্ছে। প্রতারণা আটকাতে চালু হয়েছে চিপ কার্ড। এর আগেও দিল্লি থেকে এটিএম প্রতারণার অভিযোগ রোমানিয়ার বেশ কয়েকজন নাগরিককে গ্রেফতার করেছিল কলকাতা পুলিশ। তার পর মনে করা হয়েছিল, এটিএম প্রতারণার দৌরাত্মে কিছুটা রাশ টানা যাবে। কিন্তু রবিবারের পর পুলিশ এবং সাধারণ মানুষের ফের নতুন করে চিন্তা বাড়ল।