শহর কলকাতায় আবার জোড়া পথ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন দু জন। স্থানীয়দের অভিযোগ, দুটো ক্ষেত্রেই রাস্তা খারাপ থাকার জন্য়ই  এই দুর্ঘটনা ঘটে । শনিবার সকালে  দক্ষিণ কলকাতার রানিকুঠিতে বাসের ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারালেন চিনু কুণ্ডু নামে  এক  মহিলা। এবং মধ্যরাতে সার্ভে পার্কে মৃত্যু হয়েছে  বছর পয়ত্রিশের প্রবীর দাস নামে এক বাইক আরোহীর।

আরও পড়ুন, হল না শেষ রক্ষে, ১৭ ঘণ্টা পর উদ্ধার হল বাঁশদ্রোণীর কুয়োয় পড়ে যাওয়া যুবকের দেহ

একদিকে কয়েকদিন ধরেই চারিদিক কুয়াশায় ঢাকা ছিল, তার উপর গতকাল থেকে শহরে হচ্ছিল একটানা বৃষ্টি। আর সেই বৃষ্টির মধ্যেই রাতে বাইকে করে বাড়ি ফিরছিলেন প্রবীর দাস।   ইএম বাইপাসের কাছে হাইল্যান্ড পার্ক ক্রশিং সার্ভিস রোডে বাইক আরোহী যুবক পড়ে দেখতে না পেয়েই এই দুর্ঘটনা ঘটে। রাস্তার গর্তে বাইকের চাকা পড়ায় পিছলে ছিটকে পড়েন প্রবীরবাবু। তাঁর মুখে অতিরিক্ত চোট লাগার দরুন মাথার ভিতরে রক্তক্ষরণ হয়। পিয়ারলেস হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। 

আরও পড়ুন, শহরে তাপমাত্রা নামল ১১.১ ডিগ্রিতে, বছর শুরুতে ফের বৃষ্টির পূর্বাভাস

অপরদিকে, রানিকুঠির রাস্তায় গতকাল রাতের একটানা বৃষ্টির  জল জমে ছিল রাস্তা খানাখন্দে। আর সেটা এড়াতেই রাস্তার প্রায় মাঝামাঝি চলে এসেছিলেন এক মহিলা। ঠিক সেই সময় দ্রুত গতিতে  আসা একটি বাস পিষে দেয় ওই মহিলাকে। ঘটনাস্থলেই বাসটিকে আটকায় উত্তাল জনতা। তবে কোনও ভাঙচুরের আগেই পুলিশ এসে চালককে গ্রেফতার করে। অবশ্য় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, চালকের তেমন কোনও দোষ ছিল না। ওই মহিলাও জমে থাকা জল এড়াতেই বিপজ্জনভাবে রাস্তা দিয়ে হাটছিলেন। হঠাৎ-ই বাসটি  তাঁর দিকে চলে আসে। স্থানীয়রা জানান যে, চালক ব্রেক কষলেও ততক্ষণে ওই মহিলার মাথায় ধাক্কা লাগে। মাথায় প্রবল রক্তক্ষরণ হওয়ার ফলে হাসপাতালে পাঠানোর আগেই মারা যান তিনি। এরপরই উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে রানিকুঠি এলাকায় । পুলিশ গিয়ে বাসটিকে আটক করে। চালককে থানায় নিয়ে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়।