চলতি বছরের ছবিটা সম্পূর্ণ আলাদা। এক কথায় বলতে গেলে যে ছবি সকলের অচেনা। এভাবে যে বাঙালির ভাবনা আগে বা উৎসবে কোণ ঠাঁসা করতে পারে একটি রোগ, তা জানাও ছিল না। না, কেবল বাঙালি নন, গোটা বিশ্ব এখন ঘরে বন্দি। এমনই পরস্থিতিতে এবার নতুন কায়দায় চলছে সেলিব্রেশন। ভাইয়ের মঙ্গল কামনায় ভাইফোঁটার অনুষ্ঠান। সেই উদ্যোগে নেই কোনও ফাঁক। 

কপালে ফোঁটা নাই বা উঠল, কিন্তু দূর থেকে হলেও ভাইকে একবার দেখা, বিশ্বাসের ওপর ভর করেই ফোন বা ল্যাপটপে পরছে দেদার ফোঁটা। এবার এমনই ছবি উঠে এলো বাংলার একাধিক ঘরে ঘরে। অনেকেই ফিরতে পারছেন না বাড়িতে। কেউ আবার আটকে রয়েছে কোয়ারেন্টাইনে। কোভিডের কোপে কেউ নিতে পারছে না ফোঁটা। এই সকল ভাইবোনেদের কাছে এখন একটাই আশ্রয় অনলাইন ভাইফোঁটা। 

গিফটের জন্যও সেই অনলাইন পরিষেবা আর মিষ্টিও পৌঁচ্ছে দিচ্ছে সুইগি, জোমাটোরা। এভাবেই এবারের ভাইফোঁটার উৎসবে মাতল আপামড় বাঙালি। আবার মিষ্টির দোকানেও ধরা দিল চেনা ছবি। মিষ্টিরও দাম এবার আকাশ ছোঁয়া। ভালো মিষ্টি মানেই তার দাম ২০ থেকে ২৫ টাকা। তাই পকেটেও বেশ টান পড়ছে প্লেট ভরাতে। অন্যদিকে বাজারে দোকানেও সকাল থেকে ভিড় চোখে পড়ে এদিন।