মহালয়া হয়ে গিয়েছে। পায়ে পায়ে এগিয়ে আসছে বাঙালি শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপুজো। অন্যন্য বছরগুলির তুলনায় এবার কিছুটা দেরিতেই হচ্ছে পুজো। কিন্তু  করোনাভাইরাসের এই অতিমারির কারণে কতটা উৎসব মুখর হবে বাঙালি তা নিয়ে এখনও প্রশ্ন রয়েই গেছে। কারণ এখনও পর্যন্ত রাজ্যের অধিকাংশ মানুষই গৃহবন্দি। গড়িয়াহাট থেকে নিউমার্কেট, এমনকি হাতিবাগান বা শ্যামবাজার কোথাও এখনও তেমন ভিড় লক্ষ্য করা যায়নি। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় পুজোর নিয়ম নীতি ঘোষণা করেছে। তিনি জানিয়েছে ঠাকুর দেখা যাবে তৃতীয়া থেকেই। প্রসাদ বিতরণ, অঞ্জলি আর সিদুঁর খেলার সময় যাতে সংক্রমণ না ছড়ায় সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। 

মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়র ঘোষণা অনুযায়ী অতিমারির সময় দুর্গা পুজোর নিয়ম বিধি হল 
পুজো মণ্ডপের চার ধার খোলা রাখতে হবে
মণ্ডপে হ্যান্ড স্যানেটাইজার রাখা বাধ্যতামূলক
মণ্ডপে ঢোকার সময় প্রত্যেক দর্শনার্থীকে হ্যান্ড স্যানেটাইজার ব্যবহার করতে হবে
মণ্ডপে ঢুকতে গেলে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক
নিরাপদ শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে চলতে হবে
পুজো মণ্ডপ বা মণ্ডপ সংলগ্ন স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না
বিসর্জনের শোভাযাত্রায় ভিড় করা যাবে না  
চলতি বছর দুর্গা পুজো কার্নিভ্যাল আয়োজন করা হবে না 

 

আগামী ২২ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে দুর্গা পুজো। কিন্তু বর্তমানে রাজ্যের করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ছবিটাও উদ্বেগজনক। কারণ স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া হিসেব অনুযায়ী রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্য়া ২লক্ষ ৩৪ হাজার ৬৭৩।  এখনও পর্যন্ত এই রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪৫৪৪ জনের। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন, ৩ হাজারের বেশি মানুষ। দেশের করোনা আক্রান্ত রাজ্যের ক্রম তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের স্থান সপ্তম।