দুর্গাপুজোয় কমিটিগুলোর জন্য বড় খবর। চলতি বছর দুর্গাপুজো কমিটিগুলোর জন্য় ৫০ হাজার টাকা করে দেবে রাজ্য় সরকার। এমনই ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। এখানেই শেষ নয়, দুর্গাপুজো কমিটিগুলির জন্য় আরও কিছু ছাড়ের কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

৩০ মিনিট বাড়ছে শেষ মেট্রোর সময়,নয়া ভাবনা কর্তৃপক্ষের

এদিকে করোনা ভাইরাসের মতো অতিমারির কারণে দুর্গা উৎসব নিয়ে চিন্তায় বাঙালি। এখনও রাজ্যের অধিকাংশ মানুষই গৃহবন্দি। গড়িয়াহাট থেকে নিউমার্কেট, এমনকী হাতিবাগান বা শ্যামবাজার কোথাও এখনও তেমন ভিড় লক্ষ্য করা যায়নি। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায় পুজোর নিয়ম নীতি ঘোষণা করেছে। তিনি জানিয়েছে ঠাকুর দেখা যাবে তৃতীয়া থেকেই। প্রসাদ বিতরণ, অঞ্জলি আর সিদুঁর খেলার সময় যাতে সংক্রমণ না ছড়ায় সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। 

রাজ্যপালের নামে থানায় অভিযোগ দায়ের,এই দলের মুখেও 'তৃণমূলের কথা'

করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে পুজো মণ্ডপের চার ধার খোলা রাখতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মণ্ডপে হ্যান্ড স্যানেটাইজার রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। মণ্ডপে ঢোকার সময় প্রত্যেক দর্শনার্থীকে হ্যান্ড স্যানেটাইজার ব্যবহার করতে হবেই। এছাড়াও মণ্ডপে ঢুকতে গেলে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
নিরাপদ শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে চলতে নিদান দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

ভোটে লড়তে কেন্দ্রীয় প্রকল্পের টাকা থেকে কাটমানি খাবেন মমতা,'দিদিকে হুল বাবুলের'

এখানেই থেমে থাকেনি বিধি নিষেধ। এবার থেকে পুজো মণ্ডপ বা মণ্ডপ সংলগ্ন স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করা যাবে না। এমনকী যে বিসর্জনকে কেন্দ্র করে বিসর্জনের শোভাযাত্রায় ভিড় করা যাবে না । এ বছর বন্ধ রাখা হবে দুর্গা পুজো কার্নিভ্যাল।