অবশেষে আবহবিদদের কথাই ফলল। ঝেঁপে বৃষ্টি এল কলকাতায় ।আগামী দুই দিন গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ভাসবে বৃষ্টির দাপটে। 

অতীতেই আবহবিদরা বলছেন,  ১ ও ২ জুলাই দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির সম্ভাবনা। বেশি বৃষ্টি হবে উপকূলের জেলা ও পশ্চিমের জেলাগুলোতে। সেই কথামতোই বৃষ্টি এল।

ঠিক কী কারণ এই বৃষ্টির?  এই মুহূর্তে একটি নিম্নচাপ ও একটা ঘূর্ণাবর্ত অবস্থান করছে উত্তর পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে সংলগ্ন ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের ওপরে। আগামী ২৪ ঘন্টায় কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টি হবে,তবে টানা বৃষ্টি নেই। তবে এই ঘূর্ণাবর্তটা ঘুরছে ওড়িশার দিকে। তাই বেশি বৃষ্টি হবে ওড়িশার উপকূলে। ওড়িশা সংলগ্ন দক্ষিণবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুরে তুলনামূলক ভাবে বেশি বৃষ্টি হবে। কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে বেশি বৃষ্টি হবে না। বলা ভাল, বিরতি দিয়ে দিয়ে বৃষ্টি হবে এখানে। তবে আশার কথা, তাপমাত্রা বাড়বে না , যদিএ আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে।

প্রসঙ্গত এই বছর বৃষ্টি পরিমান কম ,বর্ষার আমেজও নেই । ভারী বৃষ্টি বা টানা বৃষ্টির দেখাই নেই দক্ষিণবঙ্গে। এমনিতেই বর্ষা দেরিতে এসেছে, পশ্চিমবঙ্গের প্রতিটি জেলায় বর্ষার ঘাটতি ছিল। গাঙ্গেয় পশ্চিম‌বঙ্গে বর্ষার ঘাটতি প্রায় ৬০ শতাংশের কাছাকাছি। একমাত্র জলপাইগুড়ি ও অলিপুদুয়ারে বৃষ্টি হয়েছে সঠিক পরিমাণে। 

আবহবিদরা বলছেন, গত ১০ বছরে এত বড় বৃষ্টির ঘাটতি আগে হয়নি। মূলত দুটি কারণে এই বিলম্ব। প্রথমত, বর্ষা দেরিতে ঢুকেছে। তারপর যখন বর্ষা ঢুকল তখনও বড় কোনও কার্যকরী সক্রিয়তা ছিল না, ফলস্বরূপ বর্ষা দুর্বল হয়ে ঢুকেছে।