রথযাত্রা আগামীকাল। তার মুখেই বৃষ্টি হয়ছে শহরে। তাপমাত্রাও অনেকটা কমেছে। কিন্তু শহরবাসীর প্রশ্ন, রথের দিনে বৃষ্টি হবে কী? আবহবিদরা বলছেন সম্ভবত বৃষ্টি নিরাশ করবে না কাল শহরবাসীকে। তবে বৃষ্টির তেজ কমবে।

এদিন আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো গিয়েছে, গত তিনদিন বৃষ্টি এনেছিল যে নিম্নচাপ তা পশ্চিমে সরে গিয়েছে। এখন মধ্যপ্রদেশ এর উপরে রয়েছে নিম্নচাপ। ঘূর্ণাবর্তও একই স্থানে রয়েছে। নিম্নচাপ সরে যাওয়ার ফলে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গে ও উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পরিমাণ কমেছে। এই বৃষ্টির পরমাণ আরও কমবে আগামী ৪৮ঘন্টায়।

আবহবিদরা আরও জানাচ্ছেন নিম্নচাপের প্রভাব থাকবে শুধুমাত্র বঙ্গোপসাগরের উপরে। সমুদ্র উত্তাল থাকার জন্যে মৎস্যজীবীদের আগামী ২৪ ঘন্টায় সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। নিম্নচাপ সরে যাওয়ার ফলে কলকাতা-সহ দক্ষিণ বঙ্গে আগামীকাল থেকে তাপমাত্রা ও আর্দ্রতাজনিত অস্বস্থি বাড়বে। এখনও কোনও নতুন সক্রিয়তা নেই। তবে ৭২ ঘন্টা পরে আসা করা যাচ্ছে আবার ও সমুদ্রে সক্রিয়তা তৈরি হবে। এদিন সর্বচ্চো তাপমাত্রা থাকবে ৩৩ ডিগ্রি। আগামীকাল তাপমাত্রা বাড়বে। বাড়বে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তিও। 

আবহবিদরা বলছেন, গত ১০ বছরে এত বড় বৃষ্টির ঘাটতি আগে হয়নি। মূলত দুটি কারণে এই বিলম্ব। প্রথমত, বর্ষা দেরিতে ঢুকেছে। তারপর যখন ঢুকল বড়ো কোনও কার্যকরী সক্রিয়তা ছিল না, বর্ষা দুর্বল হয়ে ঢুকেছে। বাংলার পশ্চিমাঞ্চলে বৃষ্টি কম হওয়ায় ব্যাপক ঘাটতি তৈরি হয়েছে। এই ঘাটতি মিটতে চাই ভারী বৃষ্টি। না হলে এই ঘাটতির প্রভাব পড়বে ফলনে। সেই দিকেই এখন চেয়ে রয়েছে রাজ্যবাসী।