লকেট চট্টোপাধ্যায়, অগ্নিমিত্রা পল, অনুপম হাজরা, জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর এবার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলেন খোদ বিজেপির রাজ্যসভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ। গত সোমবার থেকে শারীরিক অসুস্থতা বোধ করছিলেন দিলীপ ঘোষ। ধীরে বাড়তে থাকে অসুস্থতা। শুক্রবার থেকে প্রবল জ্বরে কাবু হয়ে পড়েন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। করোনা পরীক্ষা অসুস্থ হওয়ার পরই করানো হয়েছিল দিলীপ ঘোষের শুক্রবার সেই রিপোর্ট পজেটিভ আসে। দলের রাজ্য সভাপতির করোনা আক্রান্তের খবর আসতেই উদ্বিন্ত বিজেপি নেতা কর্মীরা।

দিললীপ ঘোষের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসার পরই তাকে সল্টলেকের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রবল জ্বর রয়েছে বিজেপি নেতার। ১০২ ডিগ্রি কখনও কখনও তারও বেশি জ্বরের তাপমাত্রা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে সূত্র মারফত। তার শারীরিক অবস্থার কথা ভেবে দিলীপ ঘোষকে রাখা হয়েছে এইচডিএই–তে। স্বাভাবিকভাবেই তাঁকে কড়া পর্যবেক্ষণে রেখেছেন চিকিৎসকরা। প্রয়োজনীয় ওষুধও দেওয়া হয়েছে তাকে। তবে স্বস্তির খবর এখনও শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ স্বাভাবিক রয়েছে বিজেপি রাজ্যসভাপতির। দলের তরফ থেকেও নেওয়া হচ্ছে তার যাবতীয় খোঁজ-খবর।

এর আগে বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়, মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল, বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ একাধিক বিজেপি নেতা-নেত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এখনও করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরাও। দিনকয়েক আগে দিলীপ ঘোষের নিরাপত্তারক্ষীদের মধ্যেই কয়েকজন আক্রান্ত হচ্ছিলেন মারণ ভাইরাসে। এবার খোদ দিলীপ ঘোষ মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উদ্বেগ বেড়েছে দলের অন্দরে। বিজেপির নবান্ন অভিযানের পর একের পর বিজেপি নেতা-কর্মীরা করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন বলেও জানা যাচ্ছে। ফলে দলের অন্দরেও বাড়ছে অস্বস্তি। তবে দিলীপ ঘোষের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব।