বিশ্ব এইডস দিবসে সরকারের সাফল্যের কথা জানিয়ে টুইট করলেন মুখ্যমন্ত্রী। এইডস প্রতিরোধে রাজ্য সরকারের বিশেষ প্রকল্পগুলিই দেশের সেরা তকমা পেয়েছে বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্য়োপাধ্য়ায়। 

অন্তঃসত্ত্বা মহিলা এইডস আক্রান্ত হলে মা ও শিশুর প্রতি  বিশেষ নজর দিতে হয়। ইতিমধ্যেই মা ও সন্তানের জন্য বেশকিছু প্রকল্প ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। গর্ভবতী মহিলা, সদ্যোজাতের সুবিধার্থে এই প্রকল্প থেকে লাভবান হচ্ছেন বহু মা ও শিশু। মুখ্য়মন্ত্রী টুইটারে জানিয়েছেন, এই প্রকল্পগুলির মাধ্যমে রাজ্যের প্রায় সাড়ে ১৬ লক্ষ মহিলা বিনামূল্যে পরিষেবা পাচ্ছেন।  

Today is #WorldAIDSDay. I am happy to share with all of you that as per the assessment done by #NACO for ‘Prevention of Parent to Child Transmission of HIV’ programme for 2017-18, #Bangla had emerged # 1 in the country 1/2

— Mamata Banerjee (@MamataOfficial) December 1, 2019 

 

মূলত, গর্ভবতী মহিলাদের শরীর থেকে যাতে গর্ভস্থ সন্তানের দেহে এইডস সংক্রমিত না হয়, সেই চিকিৎসা পরিষেবা দেওয়া হয়েছে মা ও বাচ্চাকে। যার ফলও মিলছে হাতেনাতে। এই পরিষেবার ফলে সুরক্ষিত রাখা গিয়েছে বহু সদ্যোজাতকে। সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এইচআইভি পজিটিভ আক্রান্ত মা, শিশুর চিকিৎসা করা হচ্ছে রাজ্য সরকারের তরফে।

সম্প্রতি 'প্রিভেনশন অফ পেরেন্টস টু চাইল্ড ট্রান্সমিশন অফ এইচআইভি' নামে একটি সমীক্ষা চালানো হয়। কোন রাজ্য কেমন কাজ করেছে, তা নিয়ে সমীক্ষা চালিয়েছিল 'ন্যাশনাল এইডস কন্ট্রোল অর্গানাইজেশন' বা 'ন্যাকো'। এই সমীক্ষাতেই এইডস প্রতিরোধের কাজের নিরিখে প্রথম স্থানে রাখা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গকে। ন্যাকো-র এই সমীক্ষার ফলই টুইটারে তুলে ধরেছেন মুখ্য়মন্ত্রী। অতীতেও দেখা গিয়েছে, কন্যাশ্রী ছাড়াও বেশকিছু প্রকল্প বাংলার নাম উজ্জ্বল করেছে। খোদ বিশ্বমঞ্চে দাঁড়িয়ে কন্য়াশ্রীর জন্য সেরা পুরস্কার নিয়ে এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী।