নতুন করে টালা ব্রিজ তৈরি করা জন্য দরপত্র ডাকল রাজ্য সরকার। দরপত্র অনুযায়ী, ২৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে নতুন সেতু তৈরি করা হবে। চার লেনের এই সেতুর কাজ দেড় বছরের মধ্যে শেষ করতে হবে বলেও রাজ্যের তরফে শর্ত দেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, যে সংস্থা এই সেতু তৈরি করবে, তাদেরকেই পরবর্তী দশ বছর  সেতু রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিতে হবে বলেও রাজ্যের তরফে শর্ত দেওয়া হয়েছে। 

চলতি বছরের সেপ্টেম্বর মাসে টালা সেতুর স্বাস্থ্য পরীক্ষার সময় তার বেহাল অবস্থা নজরে আসে। সেতুটি অবিলম্বে ভেঙে ফেলা দরকার বলে মত দেন বিশেষজ্ঞরা। সেতুর উপর দিয়ে বাস চলাচলও বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফলে চরম হয়রানির মধ্যে পড়েন বি টি রোড দিয়ে যাতায়াতকারী যাত্রীরা। এর পরেই নতুন সেতু তৈরির সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য সরকার। 

আরও পড়ুন- বিশেষজ্ঞদের সুপারিশ মেনে টালা ব্রিজ ভেঙে ফেলারই সিদ্ধান্ত নিল সরকার

আরও পড়ুন- টালা সেতুর বাসিন্দাদের হাল কি, রাজ্যের কাছে হলফনামা চাইল হাইকোর্ট

রাজ্যের সঙ্গে রেলও টালা ব্রিজ তৈরির দায়িত্বে থাকছে। কারণ রেল লাইনের উপর দিয়েই গিয়েছে টালা ব্রিজ। জানা গিয়েছে, কেবল চেন পদ্ধতিতে নতুন এই সেতু তৈরি করা হবে। এর ফলে রেল লাইনের মাঝে কোনও পিলার বসাতে হবে। রেলের লাইনের দু' পাড়ে শুধুমাত্র পিলার থাকবে। মাঝের অংশে লোহার তার দিয়ে সেতুর ওজন ধরা থাকবে। এই প্রযুক্তিতেই দ্বিতীয় হুগলি সেতু, পার্ক সার্কাস চার নম্বরে মা উড়ালপুলে রেল লাইনের উপরের অংশ নির্মাণ করা হয়েছে। 

প্রাথমিকভাবে নতুন সেতুর তৈরির জন্য রাজ্যের নকশায় আপত্তি জানিয়েছিল রেল। কারণ রেল লাইনের মধ্যে পিলার বসিয়ে আর সেতু তৈরি করতে রাজি হয়নি তারা। রেলের যুক্তি ছিল, পিলার বসাতে গেলে ট্রেন চলাচলে সমস্যার পাশাপাশি ভুগর্ভস্থ জলের লাইন-সহ জরুরি পরিষেবার লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এর পরেই নকশা বদলে 'কেবল চেন' প্রযুক্তিতে সেতু তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।