ডিএ সংক্রান্ত মামলায় রাজ্য সরকারের করা আবেদন খারিজ করল স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনাল (স্যাট)। ২০১৯-এর জুলাই মাসে ট্রাইবুনাল কোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ম অনুযায়ী ডিএ দিতে হবে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের। এই নির্দেশের বিরুদ্ধে ট্রাইবুনাল কোর্টে আবেদন জানিয়েছিল রাজ্য সরকার। সেই মামলায় রায়দান ছিল আজ। ট্রাইবুনাল কোর্ট আজ রাজ্য সরকারের করা আবেদন খারিজ করেছে।

শেষপর্যন্ত খারিজ হয়ে গেল রাজ্যের রিভিউ পিটিশন। আদালতের জানিয়ে দিল, রাজ্য সরকারি কর্মীদের দিতেই হবে বকেয়া মহার্ঘ ভাতা। রাজ্য়ের সাম্প্রতিক অতীত বলছে, কিছুদিন আগেই ডিএ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল স্যাট। সব শুনেও নির্দেশ পালনে কোনও তৎপড়তা দেখায়নি রাজ্য় সরকার। 

অতীতে করোনা পরিস্থিতির জন্য ডিএ দেওয়া সমস্যা বলে রাজ্যের পক্ষে জানানো হলে স্যাট বলে এনিয়ে ভাবনাচিন্তা করে দেখা হবে। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পরে বুধবার ডিএ মামলার রায় ঘোষণা হল। স্যাটের বিচারপতি রঞ্জিতকুমার বাগ ও প্রশাসনিক সদস্য সুবেশকুমার দাস এই রায় দেন। ষষ্ঠ বেতন কমিশন চালু হলেও বকেয়া ডিএ দেওয়া হবে না বলে যে ঘোষণা রাজ্যের পক্ষে করা হয়েছিল। যদিও এরপর  এই রায় রাজ্য সরকারের কাছে বড় ধাক্কা বলেই মনে করছে রাজনৈতিক  মহল। 

স্যাটে শুনানি চলাকালীন রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত জানান, রাজ্যের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ। এই পরিস্থিতিতে কর্মচারীদের মহার্ঘ ভাতা দেওয়ার মতো সামর্থ্য নেই সরকারের। বহুবার একই কথা শোনা গিয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর মুখে।