মালদা বিস্ফোরণ নিয়ে মন্তব্যের পর পাল্টা জবাব দিল এবার নবান্ন। 'মালদার সুজাপুরের কারখানায় উৎপাদন সংক্রান্ত সমস্যার জেরেই বিস্ফোরণ হয়। এর সঙ্গে বোমার কোনও যোগাযোগ নেই', স্পষ্ট জানিয়েছে নবান্ন। তবে এনআইএ তদন্তের দাবি জানিয়েছে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। 

 

 

 

 'রাজ্যে বোমা তৈরির কারখানা বন্ধ'-র  পাল্টা জবাব নবান্নের

মালদা বিস্ফোরণের পর আগের মতোই 'রাজ্যে বোমা তৈরির কারখানাগুলি এবার বন্ধ করুন' বলে টুইট করে মুখ্যমন্ত্রীকে ট্য়াগ করেন রাজ্যপাল। প্রসঙ্গত, মালদা বিস্ফোরণে টুকরো টুকরো হয়ে যায় টোটো চালকের দেহ। বৃহস্পতিবার দুপুরে মালদার কালিয়াচক থানার সুজাপুরে এক প্লাস্টিক কারখানায় বিস্ফোরণ ঘটে।  বিস্ফোরণে ৫ শ্রমিকের মৃত্যুও হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় মালদা মেডিক্য়ালে ভর্তি ৪ জন। আর এরপরেই টুইটে তোপ দাগেন রাজ্যপাল। সঙ্গে হাজির হয় বিজেপিও। রাজ্যপাল আরও বলেন টুইটে, দিদির সরকার যেদিন থেকে এ রাজ্য়ে এসেছে, সেদিন থেকেই একের পর এখ বিস্ফোরণ হচ্ছে বাংলায়।  বাংলা এখন বোমা-বন্দুকের কারখানা হয়ে গিয়েছে। বাইরে থেকে বিস্ফোরক-উগ্রপন্ত্রী দুই আসছে' বলে আলকায়দা ইস্যু আভাষ দিয়ে খোঁচা দেন। আসলে এই সরকার শুধু বিজেপিকে আটকাতেই ব্য়স্ত, আইনশৃঙ্খলার বিষয়ে তাঁদের কোনও নিয়ন্ত্রন নেই। ' আর এই টুইটের পর পাল্টা জবাব দিল এবার নবান্ন।

 

 


'সেখানে কোনও বোমা তৈরি হচ্ছিল না'


নবান্নের তরফে স্পষ্ট জানানো হয়, মালদার সুজাপুরের কারখানার উৎপাদন সংক্রান্ত সমস্যার জেরেই বৃহস্পতিবার বিস্ফোরণ হয়। এর সঙ্গে বোমার কোনও যোগাযোগ নেই'। সেখানে কোনও বোমা তৈরি হচ্ছিল না। অথচ বিষয়টিকে দায়িত্বজ্ঞানহীন বলে অভিযোগ করা হচ্ছে। ঘটনার পরেই জেলাশাসক ও পুলিশ সুপার তদন্ত করে রাজ্যেকে প্রাথমিক রিপোর্ট জমা দিয়েছে। এমনটাই জানানো হয় স্বরাষ্ট্র দফতরের তরফে। নিহতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হচ্ছে। আহতদের ৫০ হাজার টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হচ্ছে।